শনিবার, ২৫ মে ২০২৪ ।। ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ ।। ১৭ জিলকদ ১৪৪৫


মুসলিমবিশ্বের নোবেল খ্যাত বাদশাহ ফয়সাল পুরস্কারের মনোনয়ন গ্রহণ শুরু


নিউজ ডেস্ক

নিউজ ডেস্ক
শেয়ার
ছবি : সংগৃহীত

মুসলিমবিশ্বের নোবেল খ্যাত বাদশাহ ফয়সাল পুরস্কারের মনোনয়নের আবেদন গ্রহণ শুরু হয়েছে। ইসলামের সেবা, ইসলাম শিক্ষা, আরবি ভাষা ও সাহিত্য, মেডিসিন, বিজ্ঞানসহ মোট পাঁচ বিভাগে বিশ্বের খ্যাতনামা ব্যক্তিদের এই পুরস্কার দেওয়া হবে।

সৌদি বার্তা সংস্থা এসপিএর বরাতে সৌদি গেজেট জানিয়েছে, ১ সেপ্টেম্বর থেকে মনোনয়ন গ্রহণ শুরু হয়েছে, যা আগামী বছরের মার্চ পর্যন্ত মোট সাত মাস চলবে। এরপর ২০২৫ সালের জানুয়ারিতে বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হবে। পরে রিয়াদে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে তাঁদের পুরস্কৃত করা হবে।

পুরস্কার হিসেবে প্রত্যেকের জন্য থাকবে সাত লাখ ৫০ হাজার রিয়াল (দুই লাখ মার্কিন ডলার)। এ ছাড়া থাকবে ২৪ ক্যারেটের ২০০ গ্রাম স্বর্ণের মেডেল ও সম্মাননা পদক।

বাদশাহ ফয়সাল পুরস্কারের মহাসচিব আবদুল আজিজ আল সাবিল বলেন, ‘৪৭ বছর ধরে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের এই পুরস্কার দেওয়া হচ্ছে। এবার ইসলাম শিক্ষা বিভাগের বিষয়বস্তু হলো আরবি উপদ্বীপে প্রত্নতত্ত্বের অধ্যয়ন, আরবি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগে আরবি সাহিত্যে পরিচয়ের অধ্যয়ন, মেডিসিন বিভাগে সেলুলার থেরাপি এবং বিজ্ঞান বিভাগে পদার্থবিদ্যা।

ইসলাম সেবার ক্ষেত্রে যাঁরা ইসলাম, মুসলিম ও পুরো মানবসমাজের সেবায় বিশেষ ভূমিকা রেখেছেন তাঁদের এ বিভাগে সম্মাননা পুরস্কার দেওয়া হয়।’ তিনি আরো জানান, সংশ্লিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়, একাডেমিক ও সায়েন্টিফিক প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে মনোনয়ন আবেদন গ্রহণ করা হয়।

এ ক্ষেত্রে ব্যক্তি পর্যায়ে বা রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে কোনো আবেদন গ্রহণ করা হবে না। ডাক, ই-মেইল বা ওয়েবসাইটের মাধ্যমে মনোনয়ন পাঠানো যাবে। এ বিষয়ে www.kingfaisalprize.org ওয়েবসাইট থেকে বিস্তারিত নির্দেশনা জানা যাবে।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুসরণ করে বিশেষজ্ঞ কমিটির মাধ্যমে চূড়ান্ত বিজয়ীদের নির্বাচন করা হয়। জ্ঞান-বিজ্ঞানে অবদান রাখা বিশিষ্ট মুসলিম ব্যক্তিত্বদের সম্মাননা দিতে ১৯৭৭ সালে কিং ফয়সাল ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৭৯ সাল থেকে বিশ্বের নির্বাচিত গুণীদের পুরস্কার প্রদান শুরু হয়। প্রথম বছর শুধু ইসলামের সেবা, ইসলাম শিক্ষা ও আরবি সাহিত্য—এই তিনটি বিভাগে পুরস্কার দেওয়া হয়েছিল। ১৯৮১ সালে চিকিৎসা ও বিজ্ঞানকে পুরস্কারের অন্তর্ভুক্ত করা হয়। এখন পর্যন্ত ৪৩টি দেশের মোট ২৭৫ জন এই সম্মাননা পুরস্কার পেয়েছেন।

এমআরে/

 


সম্পর্কিত খবর


সর্বশেষ সংবাদ