fbpx
           
       
           
       
নিছক শিক্ষা-তথ্য আপনাকে সফল বানাতে পারবে না
সেপ্টেম্বর ০৯, ২০২২ ৭:৫৮ অপরাহ্ণ

|| ইফতেখার জামিল ||

নিছক শিক্ষা-ডিগ্রি-সার্টিফিকেট দিয়েই যদি সব হত, তবে আশরাফ ঘানি কখনোই ব্যর্থ হতেন না। ঘানি আন্তর্জাতিকভাবে সমাদৃত প্রতিষ্ঠান থেকে উচ্চশিক্ষা অর্জন করেন। ক্যালিফোর্নিয়া ও জন হপকিন্সের মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। বিশ্বব্যাংকেও কাজ করেছেন, রাষ্ট্রীয় ও সামাজিক বিনির্মাণ ছিল তার প্রধান গবেষণার বিষয়। কওমি মাদরাসা নিয়েও এক বছরের মতো ফিল্ডওয়ার্ক করেন। এতসব শিক্ষা- ডিগ্রি-গবেষণা সত্ত্বেও তিনি ভয়াবহভাবে ফেইল করেছেন।

অনেকে মনে করতে পারেন, যেহেতু বিশ্ববিদ্যালয়-শিক্ষা ‘ত্রুটিপূর্ণ’, তাহলে মাদরাসা শিক্ষা নিশ্চয় যথেষ্ট? ইমাম গাজালি আপনাকে জানাবেন, শিক্ষামাত্রই পার্থিব বিষয়। প্রচলিত ধর্মীয় শিক্ষাকে গাজালি দুনিয়াবি বিষয় বলে আখ্যা দিয়েছেন। আশরাফ আলী থানবি বলেন, ধর্মীয় বিষয় পড়লেই যদি আপনার মধ্যে ইলম : ঈমান-ইয়াকিন-তাকওয়া-মুজাহাদা চলে আসত, তবে প্রাচ্যবিদরাই হতেন সবচেয়ে বড় আলেম, সবচেয়ে বড় ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব। বাস্তবতা হচ্ছে, নিছক ধর্মীয় শিক্ষা আপনার ধর্মীয় অবস্থায় উন্নতি ঘটাবে না।

জেনারেল শিক্ষায় যেমন দুনিয়াদার মানুষ আছে, একইভাবে মাদরাসা শিক্ষাতেও প্রচুর ধোঁকাবাজ-প্রতারক-ভণ্ড আছে। তবে হয়তো মাদরাসা-শিক্ষিতদের বাহ্যিক আমল অন্য অনেকের থেকে ভালো, ধার্মিকতার হারও তুলনামূলক বেশী। এসব সত্ত্বেও মূলকথায় কোন পরিবর্তন আসবে না : নিছক মাদরাসা শিক্ষা আপনাকে ধার্মিক বানাবে না। নিছক ধর্মীয় শিক্ষা থাকলেই ভোজবাজির মতো কোনকিছু আপনার হাতে চলে আসবে না। আপনার নিয়ত ঠিক হতে হবে, আত্মশুদ্ধি থাকতে হবে, চেষ্টার মতো চেষ্টা করতে হবে।

আপনি অনেক বেশী তথ্য জানলে, অনেক বেশী মেধাবী হলেও অহংকারের কিছু নেই। অনেক বেশী ডিগ্রি-সার্টিফিকেট থাকলেও আপনার জীবনে বিশেষ পরিবর্তন আসবে না। ইদানীং অনেকে ইমোশনাল ইন্টালিজেন্স বা ইকিউয়ের কথা বলছেন। আপনি আপনার আবেগ-আচরণ-সম্পর্ক কতটা সুন্দর করতে পারছেন, তার ওপর নির্ভর করবে অনেক কিছু। তথ্য না জানলে এখন গুগল করে অনেককিছুই জেনে নিতে পারবেন।

গুগলে পড়ে থাকলে অনেক ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট একটা টপিকে বিশেষজ্ঞ পর্যায়ের তথ্য সংগ্রহ করা সম্ভব। তবে তথ্যঅর্জন করলেই আপনার মানসিক অবস্থায় বিশেষ পরিবর্তন আসবে না। আপনার কলব-অন্তর আগের মতই থেকে যাবে। আপনার আবেগ, আচরণ ও সম্পর্কও থেকে যাবে আগের মতই। নিছক শিক্ষা-তথ্য আপনাকে সফল বানাতে পারবে না। কীভাবে নিয়ত সহিহ করবেন, ঈমান-ইয়াকিন অর্জন করবেন, নিজেকে মুজাহাদায় অভ্যস্ত করবেন, মূল বিষয় এগুলোই। এ জন্য অনেক বড় আলেমকেও সাধারণ সূফীদের দরবারে পড়ে থাকতে দেখবেন।

নবীজি বলেন, ‘মানুষের শরীরে একটা বিশেষ অঙ্গ আছে, সেই অঙ্গ ভালো হলে সারা শরীর ভালো হয়ে যায়। সেটি খারাপ হলে খারাপ হয়ে যায় সবকিছু। সেই অঙ্গটি হল অন্তর।’

কেএল/

সর্বশেষ সব সংবাদ