কুমিল্লা ইস্যুতে খাস কমিটির বৈঠক শেষে যা জানালো হেফাজতে ইসলাম
অক্টোবর ১৪, ২০২১ ৯:৫২ অপরাহ্ণ

কাউসার লাবীব: কুমিল্লায় কুরআন অবমাননাকারী সকল অপরাধীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে কঠোর শাস্তির ব্যবস্থা করার দাবি জানিয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ।

আজ (১৪ অক্টোবর) রাজধানীর খিলগাঁও-এ অবস্থিত হেফাজত মহাসচিবের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত খাস কমিটির বৈঠক থেকে এ দাবি জানান হেফাজত নেতারা।

হেফাজত নেতৃবৃন্দ বলেন, কুমিল্লার ঘটনার প্রতি আমরা গভীর ভাবে নজর রাখছি। এ দেশের ইসলাম প্রিয় তৌহিদী জনতা কোনভাবেই পবিত্র কুরআন অবমাননা সহ্য করবে না, করতে পারে না। আমরা ইতিমধ্যে জানতে পেরেছি সরকার কুমিল্লার নানুয়ার দিঘিতে অবস্থিত সেই পূজা মণ্ডপটি বন্ধ করে দিয়েছে এবং কুরআন অবমাননায় অভিযুক্ত কয়েকজন অপরাধীকে গ্রেপ্তার করেছে।

নেতৃবৃন্দ আরাে বলেন, আমরা সরকারের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, দ্রুত কুরআন অবমাননাকারীদের উপর গ্রেপ্তার করায় ও সে পূজা মণ্ডপটি বন্ধ করে দেওয়ায় আপনাদের ধন্যবাদ জানাই। একই সাথে চাঁদপুরের ঘটনায় কারাে উস্কানি ছিলাে কিনা, কিভাবে ৩ জন মানুষ মারা গেলাে এর সুষ্ঠ তদন্ত হতে হবে। এ ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর কোনাে ত্রুটি ছিলাে কিনা, তাও খতিয়ে দেখতে হবে।

আমরা স্পষ্ট করে বলতে চাই, এই ধরণের ষড়যন্ত্রমূলক কাজ থামাতে হলে অবশ্যই ধর্ম অবমাননার বিরুদ্ধে কঠোর আইন পাস করতে হবে। কঠোর আইন না থাকায় কিছুদিন পরপর দেশ বিরােধী ষড়যন্ত্রকারী গােষ্ঠীগুলাে ইসলাম অবমাননা করে পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করে তুলে। আর এতে করে প্রাণ দিতে হচ্ছে নিরহ মুসলমানদের । যা আমরা সর্বশেষ কুমিল্লা ও চাঁদপুরে দেখতে পেয়েছি। আজ যদি ইসলাম অবমাননার বিরুদ্ধে কঠোর আইন থাকতাে, তাহলে এই ধরণের ঘটনা ঘটানাের সাহস করতাে না ষড়যন্ত্রকারীরা।

দেশের সকল ইসলাম প্রিয় তৌহিদি জনতা, হেফাজতের সর্বস্তরের নেতা-কর্মী ও কওমী মাদরাসা সমুহের আলেম-উলামা ও শিক্ষার্থীদের প্রতি আমাদের বিশেষ আহবান থাকবে, কারও উস্কানিতে কোনােরকম সিদ্ধান্ত নেবেন না। আগামীকাল (১৫ অক্টোবর) আপাতত হেফাজতের কোনাে কর্মসূচী নেই। আমরা পরিস্থিতির দিকে গভীর নজর রাখছি। প্রয়ােজনে ঐক্যবদ্ধভাবে কঠোর কর্মসূচি দেওয়া হবে ইনশাআল্লাহ।

তৌহিদী জনতার আন্দোলনকে পুঁজি করে অতীতের মতাে কেউ যেন স্বার্থ উদ্ধার করতে না পারে সে বিষয়েও সদা সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে।

আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জীর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, মহাসচিব আল্লামা নুরুল ইসলাম, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী পীর সাহেব দেওনা, মাওলানা মুহিবুল হক গাছবাড়ি, মাওলানা আবদুল আউয়াল খতীব ডিআইটি, মাওলানা মহিউদ্দিন রাব্বানী, মাওলানা আবদুল কাইয়ুম সুবহানী, মাওলানা জহুরুল ইসলামসহ প্রমুখ।

-কেএল