অবিলম্বে কাশ্মিরে মানবাধিকার লঙ্ঘন বন্ধ চায় ওআইসি
সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২১ ৮:৪৬ অপরাহ্ণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারত নিয়ন্ত্রিত জম্মু-কাশ্মিরের মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নতির জন্য অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি করেছে ইসলামী দেশগুলির সংগঠন ওআইসি। এ বিষয়ে শনিবার, ২৫ সেপ্টেম্বর, একটি যৌথ বিবৃতি দিয়েছে অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কো-অপারেশন।

জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের বার্ষিক সম্মেলনের সাইডলাইনে জম্মু-কাশ্মির নিয়ে গত ২৩ সেপ্টেম্বর ওআইসির নেতারা একটি অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেন। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন ওআইসির মহাসচিব ড. ইউসুফ আল-ওথাইমিন।

বিবৃতিতে বলা হয়, কাশ্মির সঙ্কট আন্তর্জাতিক ফোরামে, বিশেষ করে জাতিসংঘে তুলে ধরার পাশাপাশি অঞ্চলটির মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নয়নে অবিলম্বে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। বৈঠকে ভারত অধিকৃত কাশ্মিরের উন্নয়ন এবং কাশ্মিরি জনগণের স্ব-সিদ্ধান্তের অধিকারসহ তাদের বৈধ অধিকার প্রাপ্তির সহায়তার প্রচেষ্টা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কাশ্মিরের জনগণকে তাদের মর্যাদা ও অধিকার রক্ষার একটি স্থায়ী সমাধানের জন্য সমর্থন অব্যাহত রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করা হয়।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তির জন্য কাশ্মির বিরোধের একটি ন্যায়সঙ্গত সমাধানের আহ্বান জানান। তিনি কাশ্মিরে ভারতীয় সীমালঙ্ঘন সম্পর্কে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন ও ভারতের জবাবদিহিতার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

কুরেশি বলেন, ২০১৯ সালের ৫ আগস্ট কাশ্মিরের স্বাতন্ত্র্য মর্যাদা বাতিলের পর থেকে ৮ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ কাশ্মিরে ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সামরিক অবরোধ, নির্বিচারে আটক ও নিষেধাজ্ঞার মুখোমুখি হচ্ছে। ভারতীয় দখলদার বাহিনী কাশ্মির জনগণের কণ্ঠ স্তব্ধ করতে অকথ্য অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছে। এর সবচেয়ে সাম্প্রতিক উদাহরণ কাশ্মিরের স্বাধীনতাকামী নেতা গিলানীর মৃতদেহের সঙ্গে করা ভারতীয় আচরণ। তারা গিলানীর বাড়ি ঢুকে লাশ ছিনিয়ে নেয় ও অজ্ঞাত স্থানে দাফন করে।

কুরেশি জোর দিয়ে বলেন, জম্মু-কাশ্মির বিরোধের ন্যায়সঙ্গত সমাধান না হওয়া পর্যন্ত দক্ষিণ এশিয়ায় শান্তি থাকতে পারে না।

-এটি