কোনো সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে অংশ নেবে না বিশ্বজয়ী হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম
সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২ ৪:২৭ অপরাহ্ণ

আদিয়াত হাসান: আপাতত নিজ মাদরাসার বাইরে কোথাও কোনো সংবর্ধনা, মাহফিল, সভা, সেমিনারে অংশ নেবে না বিশ্বজয়ী হাফেজ সালেহ আহমাদ তাকরীম।

বিশ্বজয়ী হাফেজের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী ঢাকা আওয়ার ইসলামকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে, যে কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠে সুনির্দিষ্ট কিছু লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে। আপনাদের প্রাণপ্রিয় মারকাযু ফয়জিল কুরআন আল ইসলামী ঢাকা ও এর ব্যতিক্রম নয়। আজ থেকে প্রায় নয় বছর আগে ফয়জুল কুরআনের যাত্রা শুরু হয়। যে কয়েকটি বিশেষ লক্ষ্য নিয়ে প্রতিষ্ঠানটির সূচনা হয়েছিল তার মধ্যে অন্যতম একটি সময়ে সময়ে যে সকল হাফেজে কুরআন দেশ /বিশ্ব সেরা হয়ে কালের গহবরে হারিয়ে যায় তাদেরকে যোগ্য আলেম হিসেবে গড়ে তোলা।

মারকাযু ফয়জিল কুরআন জানায়, আলহামদুলিল্লাহ প্রতিষ্ঠানটির অনেক ছাত্র ইতোমধ্যেই দেশ সেরা হাফেজ হয়েও বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের কিতাব বিভাগের কেন্দ্রীয় পরীক্ষায় ২য়, ৩য়, ৫ম সহ শীর্ষ মেধাতালিকায় স্থান করে নিতে সক্ষম হয়েছে। প্রথম বছরের ছাত্ররাই আসন্ন বেফাক পরীক্ষায় মেশকাত জামাতে অংশগ্রহণ করবে। পাশাপাশি আগামী শিক্ষাবর্ষে দাওরায় হাদিসও খোলা হবে ইনশাআল্লাহ।

বিশ্বজয়ী হাফেজের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জানায়, সৌদিতে অনুষ্ঠিত বিশ্ব কুরআন প্রতিযোগিতায় সদ্যজয়ী সালেহ আহমদ তাকরীম নিঃসন্দেহে লাল সবুজের পতাকাকে সমুন্নত করেছে। কাকতালীয়ভাবে বিষয়টি আপনাদের স্বতঃস্ফূর্ত সহযোগিতায় সর্বোচ্চ প্রচারিতও হয়েছে আলহামদুলিল্লাহ। আল্লাহ আপনাদেরকে উত্তম বদলা দান করুন।

সংবর্ধনা বিষয়ে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, প্রতিষ্ঠানটির সূচনা থেকে মাত্রাতিরিক্ত প্রচার-প্রচারণা থেকে যথাসাধ্য বিরত থাকার চেষ্টা করেছি। অভিজ্ঞতার আলোকে দেখা যায় যে, অল্পবয়সে মাত্রাতিরিক্ত খ্যাতি ও প্রসিদ্ধি ভবিষ্যত জীবন গঠনে মারাত্মক প্রভাব ফেলে। সে আশঙ্কা থেকেই মাদরাসা কর্তৃপক্ষ ও তাকরীমের পরিবার যৌথভাবে কিছু সিদ্ধান্ত নিয়েছে-

এক. আগামীকাল ২৬ তারিখের পূর্ব ঘোষিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠান হবে না।
দুই. আপাতত মাদরাসার বাইরে কোথাও কোনো সংবর্ধনা, মাহফিল, সভা, সেমিনারে তাকরীম অংশগ্রহণ করবে না। তবে এক্ষেত্রে রাষ্ট্রীয় প্রোগ্রাম ভিন্ন।

আরো পড়ুন: বিশ্বজয়ী হাফেজ তাকরীমকে সংবর্ধনা দিচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয় ও ইসলামিক ফাউন্ডেশন

সবশেষে প্রতিষ্ঠানটি জানায়, মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী, ইসলামিক ফাউন্ডেশন, ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়া, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ বিভিন্ন ভাবে তাকরীমের এই অর্জনকে যারা স্বাগত জানিয়েছেন, প্রচার ও প্রসার করে দেশ-বিদেশের মানুষের সামনে তুলে ধরেছেন, এবং তাকরীম ও তার প্রতিষ্ঠানকে যারা বিভিন্নভাবে সম্মানিত করার উদ্যোগ নিয়েছেন, তাঁদের সকলের প্রতি আমরা সর্বোচ্চ শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। আপনাদের দোয়া, পরামর্শ ও সহযোগিতা অতীতের থেকে আরো বেশি কামনা করি। আল্লাহ আপনাদের সবাইকে উত্তম বিনিময় দান করুন।

কেএল/