শিরোনাম :
লেখা ও লেখকের কথা নিয়ে বাজারে লেখকপত্রের একাদশ সংখ্যা
জানুয়ারি ০৭, ২০২২ ৪:৩৩ অপরাহ্ণ

আওয়ার ইসলাম ডেস্ক: লেখা ও লেখকের কথা নিয়ে প্রকাশিত সাড়া জাগানো সাময়িকী লেখকপত্রের জানুয়ারি-মার্চ-২০২২ সংখ্যাটি এখন বাজারে। এ নিয়ে পত্রিকাটির ১১টি সংখ্যা প্রকাশিত হলো।

চলতি সংখ্যায় শিকড় সন্ধানী লেখক সৈয়দ আব্দুল্লাহকে নিয়ে রয়েছে একটি দীর্ঘ রচনা, যেখানে তার নিজের জবানিতে উঠে এসেছে সংগ্রাম ও সাধনার কথা। লেখক হয়ে ওঠার গল্প বলেছেন অর্ধশতাধিক গ্রন্থের প্রণেতা মুফতি মুবারকুল্লাহ। যারা লেখালেখি ও সাংবাদিকতায় আসতে চান তাদের জন্য রয়েছে লেখক-সাংবাদিক মাওলানা লিয়াকত আলীর নির্দেশনা।

লেখালেখি নিয়ে দীর্ঘ স্মৃতিচারণ করেছেন বিশিষ্ট লেখক মাওলানা শহিদুল ইসলাম। ‘বাংলা এতো জটিল কেন’ শিরোনামে লিখেছেন লেখক-সাংবাদিক আমীন আল রশীদ। বাংলা ভাষার প্রথম দশ মুসলিম লেখকের কথা তুলে ধরেছেন মুনীরুল ইসলাম। রফিকুল হক দাদুভাইকে নিয়ে স্মৃতিধর্মী মূল্যায়ন করেছেন মাসউদুল কাদির। চলে যাওয়া আলেম লেখক মাওলানা ইসহাক ওবায়দীর ওপর লিখেছেন মিযানুর রহমান জামীল।

‘বইয়ের পাঠক কি কমছে’ শিরোনামে রয়েছে সাংবাদিক গোলাম কিবরিয়ার বিশ্লেষণ। তারুণ্য ভাবনায় সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব শাহ ইফতেখার তারিকের। ফিলিস্তিনি প্রতিরোধ সাহিত্যের জনক গাসসান ফায়েজ কানাফানিকে নিয়ে লিখেছেন মনযূরুল হক। মুহিব খানের কবিতাভাবনা ও কাব্যানুবাদ নিয়ে আলোচনা করেছেন আব্দুল্লাহিল বাকি।

পত্রিকায় লেখালেখির হাতেখড়ি নিয়ে পথনির্দেশ করেছেন সিফাত জামান মেঘলা। মধ্যবিত্ত পাঠকের ঠিকানা পুরানা পল্টনের বইয়ের দোকান নিয়ে রয়েছে সাঈদ আবরারের ফিচার। সেবা প্রকাশনীর মাসুদ রানা সিরিজের স্বত্ব নিয়ে টানাটানির কথা তুলে ধরেছেন নূরউদ্দীন আওরঙ্গজেব। কাবার গিলাফের ক্যালিগ্রাফার বাংলাদেশি মুখতারের কথা জানিয়েছেন আলী হাসান তৈয়ব। এছাড়াও বই নিয়ে মজার তথ্য, লেখালেখির গুপ্তকথা, ছড়া-কবিতা ও তারুণ্যপত্রসহ নিয়মিত বিভাগগুলো তো রয়েছেই।

২০১৯ সাল থেকে শুরু হওয়া লেখকপত্রের সম্পাদক হিসেবে আছেন লেখক-সাংবাদিক জহির উদ্দিন বাবর। নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে আছেন আলেম লেখক ও ছড়াকার মুনীরুল ইসলাম। প্রকাশক হাবীবুর রহমান খান। এছাড়া একঝাঁক তরুণ সাময়িকীটির সঙ্গে জড়িত আছেন। ইতোমধ্যে সাময়িকীটি সব মহলে সাড়া ফেলতে সক্ষম হয়েছে।

লেখকপত্র সংগ্রহ করা যাবে- বায়তুল মোকাররমের হাবিবিয়া বুক ডিপো ও পরিপাটি থেকে। এছাড়া বাংলাবাজারের দারুল উলুম লাইব্রেরী ও মধ্যবাড্ডার মাকতাবাতুল আযহার থেকেও সংগ্রহ করা যাবে।

কমপক্ষে ১০ কপির এজেন্ট হওয়ার সুযোগ রয়েছে। সার্কুলেশন বিষয়ে যোগাযোগ করতে পারেন ০১৯১৮৭০৬০৩৫ নাম্বারে।

এনটি

সর্বশেষ সব সংবাদ