200090

ইমরান খানের পদত্যাগের দাবিতে মাওলানা ফজলুর রহমানসহ বিরোধীদলের বিক্ষোভ

আওয়ার ইসলাম: ইমরান খানের পদত্যাগের দাবিতে মাওলানা ফজলুর রহমানসহ বিরোধীদলের নেতাকর্মীরা ব্যাপক বিক্ষোভ করেছে। পাকিস্তানের পাঞ্জাবের গুজরানওয়ালাতে এ বিক্ষোভ সমাবেশ করছে আন্দোলনকারীরা। এখানে শত শত নারী-পুরুষ জড়ো হয়ে দেশটির প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করছেন বলে জানিয়েছেন আল জাজিরা।

দেশটিতে বিদ্যুত ও গ্যাস সহ নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের মূল্য বৃদ্ধি ও অন্যান্য ইস্যুকে কেন্দ্র করে সরকারের বিরুদ্ধে পুঞ্জিভূত ক্ষোভকে কেন্দ্র করে বিরোধী দলগুলোর জোট বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে।

এতে পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-এন), পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও জামায়াতে উলামা ইসলামসহ (জেইউআই-এফ) ১১টি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর জোট পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট (পিডিএম) শুক্রবার নিজেদের প্রথম গণ-আন্দোলনের ডাক দেয়।

গত ২০ সেপ্টেম্বর জোট গঠন করে পিডিএম পাকিস্তানের রাজনীতিকে সেনার প্রভাব বন্ধ এবং ইমরান খানকে ক্ষমতা থেকে উৎখাতের ডাক দেয়। এ দিনের বিক্ষোভে লন্ডন থেকে লাইভ ভিডিওতে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফ পাকিস্তনের সেনা প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়ার বিরুদ্ধে তার সরকারকে উৎখাত, বিচার বিভাগের ওপর চাপ প্রয়োগ এবং ২০১৮ সালের নির্বাচনে ইমরান খানকে ক্ষমতায় বসানোর অভিযোগ তোলেন। নওয়াজের এই মন্তব্য প্রচারে পাকিস্তানের গণমাধ্যমগুলোকে নিষেধ করা হয়।

ইমরান খানের সমালোচনা করে পিএমএল-এন নেতা মরিয়ম নেওয়াজ বলেন, ‘ইমরান নিয়াজি…আপনি আপনার মতো করে সরে দাঁড়ান, অন্যথায় জনগণ আপনাকে ছুঁড়ে ফেলে দেবে। তখন কোনো আশ্রয়কেন্দ্রে আপনার আশ্রয় মিলবে না।’

পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) প্রধান বিলওয়াল ভুট্টো বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কাশ্মীর ইস্যুতে বিশ্ব সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছেনই, উপরন্তু এই ভূখণ্ডকে মোদির কাছে বিক্রি করার চেষ্টা চালিয়েছেন। পুতুল ও সেনা নির্বাচিত নিয়াজি (ইমরান খান নিয়াজি) আপনি চুপ থাকুন। তবে কাশ্মীর ইস্যুতে আমরা চুপ থাকব না।’

পিডিএম নেতা মাওলানা ফজলুর রহমান বলেন, ‘এটি একটি অবৈধ সরকার। এটি আমাদের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে। আমরা এই অবৈধ শাসন প্রত্যাখ্যান করছি।’

আগেই ধারণা করা হয়েছিল পাকিস্তান মুসলিম লীগ (পিএমএল-নওয়াজ) এ সমাবেশে তাদের শক্তির মহড়া দেবে। পাঞ্জাবের গুজরানওয়ালা দলটির একটি শক্ত ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত। লন্ডনে অবস্থানরত পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের ইশারাতেই এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

গুজরানওয়ালার জিন্নাহ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে পর্যাপ্ত জনসমাগম নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন পাকিস্তানের তথ্যমন্ত্রী শিবলি ফরাজ। তবে তার সে অনুমানকে মিথ্যা প্রমাণ করে লোকারণ্যে স্টেডিয়ামটিতে তিল ধারণের জায়গা ছিল না।

এমডব্লিউ/

আপনার বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- 01640523566