198461

যুদ্ধ নয়, গ্রিসের প্রেসিডেন্টের উচিত শান্তির প্রস্তাব গ্রহণ করা: তুরস্ক

আওয়ার ইসলাম: গ্রিসের প্রেসিডেন্ট যদি যুদ্ধের পরিবর্তে শান্তি ও পুনর্মিলনের প্রস্তাবটি আন্তরিকভাবে গ্রহণ করেন তাহলে গ্রিস, গ্রীক সাইপ্রিওট প্রশাসন এবং পুরো অঞ্চলের জন্য উপকার হবে বলে মন্তব্য করেছেন তুর্কি ভাইস প্রেসিডেন্ট ফুয়াত ওকতায়।

তুরস্কের বিরুদ্ধে গ্রিসের প্রেসিডেন্টের অভিযোগ হাস্যকর, নিরর্থক প্রচারের প্রচেষ্টা এবং উস্কানিমূলক মন্তব্য করে আজ মঙ্গলবার গণমাধ্যমকে তিনি বলেন, গ্রিস ও গ্রীক সাইপ্রিওট প্রশাসন যদি সত্য দেখেন এবং সাইপ্রাস দ্বীপে দ্বি-সার্বভৌম রাষ্ট্রীয় সমাধানের বিষয়ে আলোচনার ইচ্ছে পোষণ করেন, তাহলে তুরস্ক এই উদ্যোগকে সমর্থন করবে।

এর আগে সম্প্রতি গ্রিসের প্রেসিডেন্ট কাতেরিনা সাকেল্লারাপোলৌ সাইপ্রাসে তুরস্ককে ‘আক্রমণকারী’ বলে অভিযোগ করেছিলেন।

১৯৭৪ সালে সাইপ্রাস অধিগ্রহণের লক্ষ্যে গ্রিসের অভ্যুত্থানের পর আঙ্কারাকে জামিনদার শক্তি হিসেবে হস্তক্ষেপ করতে হয়েছিল। পরবর্তীতে ১৯৮৩ সালে তুর্কি প্রজাতন্ত্রের অন্তর্ভুক্ত উত্তর সাইপ্রাস (টিআরএনসি) প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

কয়েক দশক ধরেই বিরোধটি সমাধানের লক্ষ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে, যার সবকটিই ব্যর্থতায় শেষ হয়েছিল। সর্বশেষ ২০১৭ সালে সুইজারল্যান্ডে জামিনদার শক্তির দেশগুলোর মধ্যে আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।

২০০৪ সালে জাতিসংঘের তৎকালীন সেক্রেটারি জেনারেল কফি আনানের পক্ষ থেকে বিরোধ সমাধানের পরিকল্পনা তুর্কি সাইপ্রিয়টরা গ্রহণ করেছিল, কিন্তু দ্বীপের উভয় প্রান্তে অনুষ্ঠিত গণভোটের মাধ্যমে গ্রিক সাইপ্রিওটরা তা প্রত্যাখ্যান করে।

বার্তা সংস্থা আনাদোলুর খবরে বলা হয়, অতি সম্প্রতি, গ্রিস তুরস্কের উপকূলের নিকটবর্তী ছোট দ্বীপের ওপর ভিত্তি করে আঙ্কারার সমুদ্র অঞ্চলটিতে বক্স করার চেষ্টা করে পূর্ব ভূমধ্যসাগরে তাদের বর্তমান শক্তি অনুসন্ধান কার্যক্রমকে বিতর্কিত করেছে।

-এটি

ads