ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ টাকা পাচার করেছে কী না, জানতে চায় হাইকোর্ট
সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২১ ৮:৩৯ অপরাহ্ণ

আওয়ার ইসলাম ডেস্ক: ই-কমার্স দেখভালের বিষয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের গঠিত কমিটি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট।

ই-কমার্সের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে ভ্যাট-ট্যাক্স আদায়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে তাও জানাতে বলা হয়েছে। ইভ্যালি, ইঅরেঞ্জের প্রতারণা নিয়ে করা রিটের শুনানিতে এসব আদেশ দেয় হাইকোর্ট।

কয়েক মাস ধরে ই-কমার্স সাইটের প্রতিষ্ঠান ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জ নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা চলছে। প্রতারণার দায়ে গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে আছে ইভ্যালি, ই-অরেঞ্জের মালিকরা। মালিকদের আটক করা হলেও টাকা জমা রাখা গ্রাহকরা পড়েছেন বিপদে। গ্রাহকদের কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে এসব ই-কমার্স সাইট।

ই-কমার্স নিয়ে তিনটি রিট করেন আইনজীবীরা। ভুক্তভোগীদের টাকা ফেরত পাওয়া, আইনি কাঠামো তৈরি করাসহ কয়েকটি নির্দেশনা চাওয়া হয় এসব রিট আবেদনে।

মঙ্গলবার (২৮ সেপ্টেম্বর) বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মোহাম্মদ মোস্তাফিজুর রহমানের হাইকোর্ট বেঞ্চ রিট তিনটির উপর প্রাথমিক শুনানি করেন। শুনানি শেষে ইভ্যালি ও ই-অরেঞ্জের মতো ই কমার্স প্রতিষ্ঠান টাকা পাচার করেছে কী না তা খতিয়ে দেখতে বাংলাদেশের ব্যাংককে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রিটকারি আইনজীবী ব্যারিস্টার হুমায়ুন কবির পল্লব জানান, ইভ্যালি এবং ই-অরেঞ্জের মতো প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছ থেকে রাজস্ব আদায়ে এনবিআর কী ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে এবং কী প্রক্রিয়ায় তারা রাজস্ব আদায় করেন এসব বিষয়ে একটি লিখিত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এছাড়া টাকা কোথায় আছে তা জানাতেও আদালত নির্দেশ দিয়েছেন বলেও জানান রিটকারি আইনজীবী।

ই-কমার্স নিয়ে সরকারের কোনো ব্যর্থতা নেই বলে দাবি করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিপুল মাগমার বলেন, ‘এখানে সরকারের কোনও ব্যর্থতা নেই। সরকার যথাযথ কমিটি গঠন করে দিয়েছেন।’ সরকার কোনও ব্যবসাও করেননি কোনও লভ্যাংশও নেয়নি এখানে সরকারের কোনও দায়ভার নেই বলেও জানান ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল।

হাইকোর্টের আদেশের প্রতিবেদন নিয়ে পরবর্তী শুনানি ৮ নভেম্বর দিন ধার্য করা হয়েছে।

-এটি

সর্বশেষ সব সংবাদ