105856

৩ সিটি নির্বাচন: রাজশাহী-বরিশালে নৌকা বিজয়ী, সিলেটে এগিয়ে ধানের শীষ

আওয়ার ইসলাম: তিন সিটি নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষে চলছে গণণা। নানা অভিযোগ, আপত্তি আর পাল্টা অভিযোগের মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে একযোগে শুরু হওয়া এ নির্বাচন। একে একে আসছে নির্বাচনের ফলাফল।

বরিশাল
মোট কেন্দ্র: ১২৩
প্রাপ্ত কেন্দ্র: ১০৭
আওয়ামী লীগ : ১০৯৮০১
বিএনপি : ১৩০৪১

সিলেট
মোট কেন্দ্র: ১৩৪
প্রাপ্ত কেন্দ্র: ১৩২
আওয়ামী লীগ : ৮৫৮৭০
বিএনপি : ৯০৪৯৬

রাজশাহী
মোট কেন্দ্র: ১৩৮
প্রাপ্ত কেন্দ্র: ১৩৮
আওয়ামী লীগ : ১৬৬৩৯৪
বিএনপি : ৭৮৪৯২

আজ সোমবার সকাল আটটা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত চলে টানা ভোট গ্রহণ। রাজশাহী, সিলেট ও বরিশাল সিটি করপোরেশনে  তিন সিটিতে মোট ১৪টি কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট হয়েছে।

৩ সিটিতে প্রায় ৯ লাখ ভোটারের মধ্যে প্রাথমিক হিসেবে ৬০ শতাংশের বেশি ভোট পড়তে পারে বলে মনে করছে নির্বাচন কমিশন।

তিন সিটির মধ্যে সিলেটে মেয়র পদে প্রার্থী সাতজন। এর মধ্যে একজন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। বাকি ছয় প্রার্থী হচ্ছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী বদরউদ্দিন আহমদ কামরান (নৌকা), বিএনপির আরিফুল হক চৌধুরী (ধানের শীষ), সিপিবি-বাসদের মো. আবু জাফর (মই), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মোয়াজ্জেম হোসেন খান (হাতপাখা), স্বতন্ত্র প্রার্থী নগর জামায়াতের আমির এহসানুল মাহবুব জুবায়ের (টেবিল ঘড়ি) ও স্বতন্ত্র প্রার্থী এহছানুল হক তাহের (হরিণ)।

২৭টি ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর পদে প্রার্থী সংখ্যা ১২৭ জন, সংরক্ষিত ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী ৬২ জন। এ সিটিতে ভোটারের সংখ্যা ৩ লাখ ২১ হাজার ৭৩২ জন।

দেশের উত্তরের জনপদ রাজশাহী সিটিতে এবারের নির্বাচনে ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ১৮ হাজার ১৩৮। মেয়র পদে প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন (নৌকা), বিএনপির মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন (ধানের শীষ), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির মো. হাবিবুর রহমান (কাঁঠাল), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মো. শফিকুল ইসলাম (হাতপাখা) এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. মুরাদ মোর্শেদ (হাতি)।

৩০টি ওয়ার্ড ও সংরক্ষিত (নারী) ১০টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠিত বরিশাল সিটি করপোরেশনের আয়তন ৫৮ কিলোমিটার। মৌজার সংখ্যা ২৭টি। সিটি করপোরেশনের হালনাগাদ ভোটার ২ লাখ ৪২ হাজার ১৬৬ জন। এর মধ্যে পুরুষ ভোটার ১ লাখ ২১ হাজার ৪৩৬ জন এবং নারী ভোটার ১ লাখ ২০ হাজার ৭৩০ জন। এবার এই সিটি করপোরেশনের চতুর্থ নির্বাচনে মেয়র পদে ৬ জন, সাধারণ ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৯৪ জন এবং নারী কাউন্সিলর পদে ৩৫ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এবারের নির্বাচনে ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১২৩টি এবং ভোট কক্ষ সংখ্যা ৭৫০টি। ছয় মেয়র প্রার্থীর মধ্যে জাতীয় পার্টির তাঁদের প্রার্থী প্রত্যাহার করে আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছে। আছেন আওয়ামী লীগের সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ (নৌকা), বিএনপির মো. মজিবর রহমান সরোয়ার (ধানের শীষ), বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির আবুল কালাম আজাদ (কাস্তে), বাংলাদেশ সমাজতান্ত্রিক দলের মনীষা চক্রবর্তী (মই), ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের ওবাইদুর রহমান মাহাবুব (হাতপাখা)।

ad

পাঠকের মতামত

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *