201076

কাতারে নবি অবমাননার প্রতিবাদে সিরাত মাহফিল

সুফিয়ান ফারাবী ।।
স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট>

কাতারে আল নূর কালচারাল সেন্টারের উদ্যোগে বিশ্ব মানবতার মুক্তির দূত রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের জীবনী নির্ভর ভার্চুয়াল আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গতকাল শনিবার (৩১ অক্টোবর ২০) কাতার সময় সন্ধ্যা সাতটা ১৫ মিনিট থেকে শুরু হয় এই আলোচনা সভা।

আল নূর কালচারাল সেন্টার কাতারের প্রকাশনা ও গবেষণা পরিচালক অধ্যাপক আমিনুল হকের সভাপতিত্বে ও নির্বাহী পরিচালক মাওলানা ইউসুফ নূরের সঞ্চালনায় বিভিন্ন দেশের খ্যাতিমান প্রবাসী ইসলামী স্কলারগন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম এর জীবন ও কর্ম নিয়ে জ্ঞানগর্ভ আলোচনা করেন।

আলোচকরা বলেন,মাইকেল এইচ হার্ট, মহাকবি গ্যাটে, স্যার উইলিয়াম ম্যুর,টলস্টয় ও জর্জ বার্ণাডশ সহ অনেক অমুসলিম মনীষী রাসূল সা: এর অনন্য ব্যক্তিত্ব এবং বিশ্ব মানবতার প্রতি তাঁর অনবদ্য অবদান ও অপ্রতিহত প্রভাবের কথা স্বীকার পূর্বক তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে গেছেন। আজ অনেক দেশ ফ্রান্সের হঠকারিতার প্রতিবাদ করেছে।এর দ্বারা বোঝা যায়,পৃথিবীতে সকলেই মানবতাহীন নয়।তাওহিদী জনতা প্রতিবাদ সমাবেশ ও ফ্রেঞ্চ পণ্য বয়কটের মাধ্যমে তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিয়েছে মুসলমানদের নবীপ্রেম। ভবিষ্যতে ও বাকস্বাধীনতার নামে তারা যেন কখনো রাসূলের অবমাননা করার সাহস না পায় , এজন্য বাংলাদেশ সহ প্রতিটি মুসলিম রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে ফ্রান্সের প্রতি কঠোরবার্তা পাঠানো প্রয়োজন।

তারা আরো বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম এর প্রতি ভালোবাসা অন্তরে পোষণ করা এবং তার অবমাননার প্রতিবাদ করা ঈমানী দায়িত্ব। কিন্তু নবীর অবমাননার প্রতিবাদ হতে হবে নববী পদ্ধতিতেই। কোন ধরনের সহিংস বা রক্তপাত ইউরোপ আমেরিকাসহ মুসলিম প্রধান দেশগুলোতে ইসলাম বিকাশে বাধা হয়ে দাঁড়াবে এবং মানবতার শক্রুরা এটাই চায়। সুতরাং আমাদের আন্দোলন হতে হবে মার্জিত এবং সুশৃংখল। মুসলিম জনতার আবেগের অপব্যবহার করে খুন খারাবির মাধ্যমে রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধির অপপ্রয়াস রুখে দেয়ার দায়িত্ব আমাদের সকলের।রাজপথের প্রতিবাদের পাশাপাশি সর্বস্তরে সিরাতুন্নবীর চর্চা ও নতুন প্রজন্মের হাতে যুগোপযোগী সিরাত সাহিত্য তুলে দেয়া ও একান্ত প্রয়োজন। আধুনিক প্রচার মাধ্যমে ইখলাসপূর্ণ বুদ্ধিভিত্তিক দাওয়াহ কার্যক্রম জোরদার করা সময়ের দাবী।তবে ব্যক্তি পরিবার ও রাষ্ট্রীয় জীবনে সুন্নাতের অনুসরণ না করলে মহানবীর হক আদায় করা সম্ভব নয় বলে ও তারা মতামত ব্যক্ত করেন।

দু’ঘন্টা ব্যাপী আলোচনায় অংশ নেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি বিভাগের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. মো. আব্দুল কাদির, এসেক্স ইসলামিক সেন্টার লন্ডনের পরিচালক আল্লামা মাহমুদুল হাসান, আল নূর কালচারাল সেন্টার নিউইয়র্কের নির্বাহী পরিচালক মুফতি ইসমাইল, অস্ট্রেলিয়ার নগরবিদ ও লেখক ড. আব্দুল্লাহ আল মামুন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ডক্টর সিদ্দিকুর রহমান খান, কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মাওলানা নাইমুল হক, ঢাকার বিশিষ্ট লেখক ও চিন্তাবিদ মাওলানা রুহুল আমিন সাদী ও আল নূর কালচারাল সেন্টার বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক মুফতি সালমান।

ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে অতিথিদের পরামর্শে আল নূর কালচারাল সেন্টারের পক্ষ থেকে তিন ভাষার রচনা সমৃদ্ধ সিরাতুন্নবী ওয়েবসাইট তৈরি ও প্রচারপত্র বিতরণের ঘোষণা দেয়া হয়। আর বাংলাদেশ আমেরিকা এবং কাতারের স্কুল-কলেজ ও ইউনিভার্সিটিগুলোতে সিরাতুন্নবী ক্যাম্পেইন ও প্রতিযোগিতার আয়োজন করা করা হবে বলে জানিয়েছেন কাতার আল নূর সেন্টারের নির্বাহী পরিচালক ও কাতার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ইমাম ও খতিব মাওলানা ইউসুফ নূর।

-এটি

আপনার বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন- 01640523566