সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪ ।। ২ বৈশাখ ১৪৩১ ।। ৬ শাওয়াল ১৪৪৫


রমজানের শেষ দশকের বিশেষ কিছু আমল

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
শেয়ার
ফাইল ছবি

মহিমান্বিত মাস রমজান শেষের পথে। রমজানের আমেজ নিয়ে মসজিদ কিংবা নিরাপদ অবস্থানে থেকেই ইবাদত-বন্দেগি ও ইতেকাফ পালন করছেন রোজাদার। শেষ দশকে লাইলাতুল কদর ও জাহান্নামের আগুন থেকে নাজাত পেতে বিশেষ কিছু ইবাদত ও উপায় তুলে ধরা হলো-

১. বছরের সেরা ১০ রাতের ইবাদত

রমজানের শেষ দশকের প্রত্যেকটি কাজ বা ইবাদতকে উদারভাবে দেখবেন এবং অনেক বেশি সওয়াব দেবেন। তাই প্রত্যেকের উচিত, রমজানের শেষ দশকে সময় অপচয় না করে ইবাদাত-বন্দেগিতে মনোযোগী হওয়া। অলসতা ও একঘেয়েমী রমজানের ইবাদতের প্রধান প্রতিবন্ধক। তাই যারা প্রথম দুই দশক অলসতায় কাটিয়ে দিয়েছে, তাদের জন্য শেষ দশকের প্রতিটি রাতের ইবাদত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

২. বিশেষ দোয়ার মাধ্যমে ইবাদত

শেষ দশকের প্রতিটি রাতে আল্লাহর কাছে বেশি বেশি দোয়া ও ইসতেগফারে কাটিয়ে দেওয়া। বিশেষ করে লাইলাতুল কদরের দোয়া নামে পরিচিত দোয়াটি বেশি বেশি পড়া। যে দোয়াটি নবিজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহাকে শিখিয়েছেন। আর তাহলো-

اللَّهُمَّ إِنَّكَ عُفُوٌّ تُحِبُّ الْعَفْوَ فَاعْفُ عَنِّي

উচ্চারণ : 'আল্লাহুম্মা ইন্নাকা আফুয়্যুন; তুহিব্বুল আফওয়া; ফাফু আন্নি।’

অর্থ : হে আল্লাহ! আপনি ক্ষমাশীল; ক্ষমা করতে ভালোবাসেন; অতএব আমাকে ক্ষমা করে দিন। (মুসনাদে আহমাদ, ইবনে মাজাহ, তিরমিজি, মিশকাত)

৩. লাইলাতুল কদর তালাশ করা

রমজানের শেষ দশকের বিজোড় রাতগুলোতে লাইলাতুল কদর তালাশ করতে থাকা। কারণ লাইলাতুল কদর হলো হাজার মাসের চেয়ে উত্তম। এ রাতের ইবাদাত হাজার মাসের ইবাদাতের সমান। রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

'যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদরের রাতে বিশ্বাস ও পুরস্কারের আশায় ইবাদাতরত অবস্থায় থাকবে, আল্লাহ তাআলা তার অতিতের সব গোনাহ মাফ করে দেবেন।' (বুখারি)

৪. দোয়ার একটি সূচি তৈরি করে নেওয়া

শেষ দশকের বিজোড় রাতে আল্লাহর কাছে ন্যায়ের পথে চলা এবং অন্যায় পথ থেকে বিরত থাকতে নিজের জন্য, পরিবারের জন্য, আত্মীয়-স্বজনের জন্য তথা নির্যাতিত মুসলিম উম্মাহর জন্য দোয়া করতে একটি তালিকা তৈরি করা। বিশেষ করে কোরআনে বর্ণিত ক্ষমা প্রার্থনার দোয়াগুলো সেজদা ও তাশাহহুদে পড়ার চেষ্টা করা।

৫. রাতের ইবাদতের জন্য দিনে ঘুমানো

রমজানের শেষ দশ দিন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একটুও ঘুমাননি। তিনি সারারাত জেগে ইবাদত-বন্দেগি করতেন। তাই দিনের বেলায় কিছু সময় ঘুমিয়ে নেওয়া। রাতে ইবাদত-বন্দেগিতে থেকে লাইলাতুল কদর পাওয়ার চেষ্টা করা।

৬. অযথা সময় ব্যয় না করা

কোনো কারণ বা প্রয়োজণ ছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, ইলেক্ট্রনিক্স মাধ্যমসহ সব ধরনের অপ্রয়োজনীয় কাজে সময় ব্যয় না করা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে থাকলেও তা যেন হয় ইবাদতের উৎস। তাই ইবাদত বন্দেগিতেই বেশি সময় ব্যয় করা। ইবাদতে মনোযোগী হওয়া।

৭. বেশি বেশি কুরআন তেলওয়াত করা

শেষ দশকে কোরআন তেলাওয়াত ও এর মর্মার্থ অনুধাবনের চেষ্টা করা। কেননা কোরআনের অধ্যয়নেই সওয়াব ও ফজিলত বেশি। তাতে সুযোগ না থাকলে শুধু তেলাওয়াতেও রয়েছে অনেক সওয়াব ও ফজিলত। তাই বেশি বেশি কোরআন তেলাওয়াত করা।

৮. ধের্য্য মাধ্যমে ইবাদাত করা

বছরের ১১ মাস ২০ দিন অপেক্ষার পর আসে রমজানের শেষ দশক। এ দশকে মুমিন মুসলমান হাজার বছরের সেরা রাত 'লাইলাতুল কদর' তালাশে অপেক্ষমান। তাই ধৈর্যসহ এ রাতের তালাশ করা জরুরি। এ দশ দিন কোনোভাবেই অধৈর্য হওয়া যাবে না। রমজানের এই শেষ দশকের প্রতিটি রাতই নিজের জীবনের জন্য চূড়ান্ত সময় ভেবে ধৈর্য সহকারে ইবাদাত-বন্দেগিতে মনোযোগী হওয়া। এ কথা মনে করে ইবাদাত করা যে, এ রমজানের শেষ দশকই হয়তো জীবনের শেষ দশক।

৯. বেশি বেশি দান-সাদকা করা

শেষ দশকের রাতে নামাজ, জিকির-আজকার, তেলাওয়াত ও অন্যান্য ইবাদাতের পাশাপাশি যারা ইতেকাফে বসে না, তাদের জন্য গরিব-দুঃখীর মাঝে আল্লাহর ওয়াস্তে বেশি বেশি দান-খয়রাত করা জরুরি। এতিম মিসকিনদের সাধ্যানুযায়ী সহায়তা করায় রয়েছে অনেক সওয়াব। আর তা যদি হয় লাইলাতুর কদরে তবে সে দানের হাজার মাসের সমান দানে পরিণত হবে।

১০. অন্যকে ইবাদাতে অনুপ্রাণিত করা

রমজানের শেষ দশকে ছেলে-মেয়ে, স্ত্রী, মা-বাব, ভাই-বোন, পরিবারের অন্যান্য সদস্য ও বন্ধু-বান্ধবদের রাতে ইবাদত বন্দেগিতে নিয়োজিত হওয়ার পরামর্শ দেওয়া। তাদের সঙ্গে ইবাদতের প্রতিযোগিতায় নামার প্রস্তুতি গ্রহণ করা। সবাইকে লাইলাতুল কদর প্রাপ্তি অনুপ্রাণিত করে তোলা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে লাইলাতুল কদর প্রাপ্তিতে ইবাদাত-বন্দেগি করার মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি লাভের তাওফিক দান করুন। আমিন।

এনএ/


সম্পর্কিত খবর


সর্বশেষ সংবাদ