198455

কাতারে আল্লামা আহমদ শফি স্মরণে দোয়া মাহফিল

আওয়ার ইসলাম: শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফি ছিলেন শতাব্দীর এক কীর্তিমান মনিষী। শুধু বাংলাদেশ নয় গোটা মুসলিম উম্মাহ তাঁর অভাব অনুভব করছে। আলনূর কালচারাল সেন্টার কাতার কর্তৃক আয়োজিত আল্লামা আহমদ শফি স্মরণে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে বক্তাগণ উপরোক্ত কথাগুলো বলেন।

গত২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত এই ভার্চুয়াল আলোচনা ও দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন আলনূর মহাপরিচালক প্রকৌশলী শোয়েব কাসেম। উপস্থাপনায় ছিলেন মরহুমের ছাত্র ও আলনূর নির্বাহী পরিচালক মাওলানা ইউসুফ নূর।

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ কমিউনিটি কাতারের সভাপতি প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন আকন। প্রধান আলোচক ছিলেন মরহুমের ছাত্র ও কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক মাওলানা নাইমুল হক।

মরহুম শাইখুল ইসলামের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদনমূলক আলোচনায় অংশ নেন চট্টগ্রাম সমিতি কাতারের সভাপতি শফিকুল ইসলাম তালুকদার, এন আর বি বিএ সভাপতি শাহজাহান সাজু, কাতার ধর্মমন্রণালয়ের ইমাম মাওলানা তালহা ,কাতারস্হ বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের প্রিন্সিপাল জসিমউদ্দিন, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব জুবাইর চৌধুরী, নজরুল ইসলাম, প্রকৌশলী মনিরুল হক ও সালেহ নূর প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে কুরআন তিলাওয়াত করেন কাতার ধর্মমন্রণালয়ের ইমাম মাওলানা নূরুল আমিন ও ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করেন কাতারস্হ বাংলাদেশ স্কুল এন্ড কলেজের শিক্ষক তাফসিরুদ্দিন।

আল্লামা আহমদ শফি সাহেবের মাগফিরাত কামনায় মুনাজাত পরিচালনা করেন তাঁর ছাত্র ও কাতার ধর্মমন্রণালয়ের ইমাম মাওলানা গোলাম রাব্বানি।

বক্তাগণ আল্লামা আহমদ শফিকে কালজয়ী ও বিস্ময়কর ইসলামী ব্যক্তিত্ব আখ্যায়িত করে বলেন, এক কৃষকের সন্তান আপন কর্মগুণে শাইখুল ইসলামের মর্যাদায় অভিষিক্ত হয়ে মুসলিম বাংলার মুকুটহীন সম্রাট হিসেবে অনন্য জানাজার মাধ্যমে আল্লাহর সান্নিধ্যে গমন করেছেন।

বিনয়ী স্বভাব, নেতৃত্বগুণ, তাক্বওয়া, ইবাদত, জ্ঞান অধ্যয়ণ, সময়ানুবর্তিতা, দায়িত্ববোধ ও সাহসিকতার উদহারণ ছিলেন তিনি। তাঁর ইন্তিকালে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও জাতীয় নেতৃবৃন্দের পাশাপাশি মুসলিম বিশ্বের খ্যাতনামা ইসলামী স্কলারগণও শোক প্রকাশ করেছেন। শাইখুল ইসলাম নশ্বর পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেও তাঁর রেখে যাওয়া বিপুল কৃতিছাত্র ও অনেক প্রতিষ্ঠানের মাঝে তিনি থাকবেন চিরজাগরূক ও অবিস্মরণীয়।

এমডব্লিউ/

ads