শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ।। ৬ বৈশাখ ১৪৩১ ।। ১০ শাওয়াল ১৪৪৫


কাফিয়া জামাতে বোর্ড পরীক্ষা, কী বলছেন মুহতামিমগণ


নিউজ ডেস্ক

নিউজ ডেস্ক
শেয়ার
ছবি: নুর আলম

|| হাসান আল মাহমুদ ||

বাংলাদেশ কওমি মাদরাসার শিক্ষা শ্রেণির অন্যতম একটি শ্রেণি হচ্ছে ‘সানাবিয়্যাহ-২/কাফিয়া জামাত’। কওমি শিক্ষার এই উচ্চ মাধ্যমিক স্তরটি ‘কাফিয়া জামাত’ নামেও বহুল প্রচলিত।

সানাবিয়্যাহ-২/কাফিয়া জামাত শ্রেণিটির বোর্ড পরীক্ষা হবে বলে কয়েক বছর ধরে আলোচনা চলছিল।

আজ (শনিবার) গণমাধ্যমে পাঠানো বোর্ডটির প্রধান পরিচালক মাওলানা উবায়দুর রহমান খান নদভী স্বাক্ষরিত একটি বিবৃতিতে জানা গেছে, ‘আগামী বছর তথা বেফাকের ৪৮তম কেন্দ্রীয় পরীক্ষা (১৪৪৬ হি.) হতে অন্যান্য ক্লাসের সাথে সানাবিয়্যাহ-২ (কাফিয়া) জামাতের পরীক্ষাও কেন্দ্রীয়ভাবে অনুষ্ঠিত হবে’।

বোর্ডটির এমন সিদ্ধান্তকে কিভাবে দেখছেন দেশের কওমি মাদরাসার মুহতামিমগণ সে বিষয়ে আওয়ার ইসলাম কথা বলে বেফাক কমিটির সদস্যের বাইরে মুহতামিমদের সঙ্গে।

মিরপুর-১২ মাদরাসা দারুর রাশাদের মুহতামিম মাওলানা মুহাম্মদ সালমান জানান, ‘কাফিয়া জামাতে বোর্ড পরীক্ষা অত্যন্ত জরুরি বিষয়। বেফাকের এমন সিদ্ধান্ত আরো আগে থেকেই নেওয়া দরকার ছিল বলে মনে করছি। যুগান্তকারী উদ্যোগের জন্য বেফাককে সাধুবাদ জানাই’।

মিরপুর-১৪ জামেউল উলুম মাদরাসার মুহতামিম মুফতী আবুল বাশার নো’মানী বলেন, ‘কাফিয়া জামাতে বোর্ড পরীক্ষা হোক এটা আমাদের অনেক আগে থেকেই একটি দাবি। বেফাকের এ উদ্যোগকে স্বাগত জানাই।

তিনি বলেন, ‘নাহবেমীর জামাতে বোর্ড পরীক্ষা দিয়ে মাঝখানে দুবছর বোর্ড পরীক্ষা নাই এটা তো অযৌক্তিক। একজন শিক্ষার্থীর জন্য বেফাকের এমন সিদ্ধান্ত উপকারী বলেই মনে করছি আমি।

জামিয়া মদীনাতুল উলুম ভাটারা মাদরাসার মহতামিম মাওলানা সাদেক আহমদ সিদ্দিকী বেফাকের উদ্যোগকে সমর্থন করে জানান, আমি বেফাকের এমন ঘোষণায় খুশি প্রকাশ করছি। কারণ, এতে ছাত্রদের পড়ালেখা আরো ভালো হবে। দুই বছর পর পর বোর্ড পরীক্ষা থাকলে ছাত্রদের পড়ালেখায় আগ্রহের গতি আরো সুচারু হবে বলে আমি মনে করছি।

চাঁদপুর কচুয়া জামিয়া ইসলামিয়া আহমদিয়া মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আবু হানিফা বেফাকের উদ্যোগকে সমর্থন করে বলেন, ‘জাতির কল্যাণে বেফাক যে উদ্যোগ নেয় তাতে সবমসময় একমত পোষণ করি। ছাত্রদের পড়ালেখার মানোন্নয়নে কাফিয়া জামাতের বোর্ড পরীক্ষা উপকারী বলেই মনে করিছ।

জামিয়া সওতুল হেরা বাসাবো ঢাকার মুহতামিম দেশের বিশিষ্ট আলেম আল্লামা আব্দুর রাজ্জাক আল-হোসাইনী বলেন, ‘বেফাকে যারা আছেন, সবাই বিজ্ঞ আলেম, তাঁরা যে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন অবশ্যই মঙ্গলের জন্যই নেবেন। কাফিয়া জামাতে বোর্ড পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হলে ছাত্রদের মাঝে প্রতিযোগিতা হবে, পড়ালেখায় তারা আরো আগ্রহী হবে। তাই আমি বেফাকের এমন সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই’।

এদিকে, জামিয়া শারইয়্যাহ মালিবাগ মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা আবু সাঈদ ‘বেফাক কর্তৃক কাফিয়া জামাতে বোর্ড পরীক্ষার ঘোষণা বিষয়টি আরো আলোচনার দাবি রাখে বলে মনে করছেন ’।

তিনি জানান, ‘এ সিদ্ধান্ত ছাত্রদের কতটা উপকারী হবে সেটা ভাবার বিষয়। আগামী বছর মালিবাগ মাদরাসার কফিয়া জামাতের বোর্ড পরীক্ষা দিবে কি না এ প্র্রশ্ন রাখলে তিনি বলেন, ‘আমরা এটা কিভাবে গ্রহণ করব ও বাস্তবায়ন করব- এ বিষয়ে আমাদের মজলিসে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবো।

‘ছাত্রদের পড়ালেখা ইমতিহান কেন্দ্রিক নয়, বরং তাদের ইস্তে’দাদ গড়াই আমাদের লক্ষ্য’ বলে তিনি মন্তব্য করেন।

হাআমা/

 


সম্পর্কিত খবর