মালয়েশিয়ায় ইন্ডাস্ট্রি অ্যাওয়ার্ড জিতলেন বাংলাদেশি শিক্ষার্থী
নভেম্বর ২৬, ২০২২ ৮:৫৫ অপরাহ্ণ

আওয়ার ইসলাম ডেস্ক: মালয়েশিয়ার মাহসা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬১ তম সমাবর্তন অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের অন্যতম সেরা সম্মাননা ”ইন্ডাস্ট্রি অ্যাওয়ার্ড” পেয়েছেন বাংলাদেশী শিক্ষার্থী হাফেজ বশির ইবনে জাফর। বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতি বছর তাদের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে বিভিন্ন ফ্যাকাল্টি থেকে সেরা শিক্ষার্থীদের নির্বাচিত করে এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করে থাকে।

শিক্ষাজীবনে ভালো ফলাফল, এক্সট্রাকারিকুলার এক্টিভিটিসে ভালো পারফর্মেন্স, ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের সফল নেতৃত্বদান এবং আগামীর সম্ভাবনাময় তারুণ্য বিবেচনায় ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড ইনফরমেশান টেকনোলজি অনুষদের সেরা শিক্ষার্থী হিসেবে তাকে এই অ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

আজ শনিবার (২৬ নভেম্বর ) বিশ্ববিদ্যালয়ের বলরুম হল এ আয়োজিত এই সমাবর্তন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মাহসা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো চ্যান্সেলর এবং চেয়ারম্যান ইয়ং বারহরমাত সিনেটর প্রফেসর তানশ্রি ড. মুহাম্মদ হানিফা বিন আবদুল্লাহ।

অন্যান্য অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. দাতো ইসহাক বিন আবদুল রাজাক, ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. দাতো ইকরাম শাহ বিন ইসমাইল, প্রফেসর ডক্টর দাতো শাহরিল বিন হানিফা, জিম্বাবুয়ের রাষ্ট্রদূত সুবার্তো যাকাতা, সিমেট্রি ইঞ্জিয়ারিং ইন্ডাস্ট্রি’র ডিরেক্টর মি. চং সহ সকল ফ্যাকাল্টির ডিন ও প্রফেসরবৃন্দ।

এর আগে মাসা ইউনিভার্সিটির স্টুডেন্ট রিপ্রেজেন্টেটিভ কাউন্সিল নির্বাচনে ২০২০ ও ২০২১ সালে পরপর দুইবার ভিপি নির্বাচিত হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেন বাংলাদেশী এই শিক্ষার্থী।

হাফেজ বশির ইবনে জাফর বলেন, আজ আমি সবচেয়ে বেশি উৎফুল্ল। আমি প্রথম মালয়েশিয়ায় আসামাত্রই সংকল্প করি আমাকে একজন শিক্ষার্থী হিসেবে সর্বোচ্চ চূড়ায় পৌঁছতে হবে। এবং বিশেষ করে গ্রাজুয়েশন শেষে আমি যেন এই অ্যাওয়ার্ডটি লাভ করতে পারি সেই চিন্তা ছিলো এবং আলহামদুলিল্লাহ্‌ আজ আমি সফল।

আমার এই সফলতার জন্য আমি আমার বাবা-মা, শিক্ষক ও সহপাঠিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাই।

২০১৮ সালে রাজধানীর দনিয়া কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করে স্কলারশিপে মালয়েশিয়ার পাড়ি জমান এই মেধাবী শিক্ষার্থী। মালয়েশিয়া যাওয়ার এক বছরের মধ্যেই তিনি তার মেধার সাক্ষর রাখতে শুরু করেন। একের পর এক চমক দেখতে থাকে সারা মালয়েশিয়ার শিক্ষার্থীরা।

সারা বিশ্বের ৫১ টি দেশের শিক্ষার্থীদের হারিয়ে প্রথমবারের মতো ২০২০ সালে সেখানকার ছাত্র সংসদের ভিপি নির্বাচিত হোন। আমন্ত্রণ পান তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মুহাম্মদের একটি লিডারশিপ কনফারেন্সে। পরবর্তীতে বছর আবারও ভিপি নির্বাচিত হয়ে রেকর্ড গড়েন এই শিক্ষার্থী।

একাডেমিক জীবনে তিনি তার বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি ক্লাবের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এক বছর। মাহসা ইসলামিক ক্লাবের যাকাওয়া ব্যুরো প্রধান হিসেবেও কাজ করেছেন এক সেশনে। বিভিন্ন সেমিনার ও করোনা মহামারি সময়ের সামাজিক কার্যক্রমে অংশ নিয়ে তিনি সেখানকার শিক্ষার্থী ও নাগরিকদের মনজয় করেন।

২০২২ সালে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের অন্যতম বৃহৎ সংগঠন বিএসওএম এর সেক্রেটারি নির্বাচিত হয়ে প্রবাসী শিক্ষার্থীদের সার্বিক কল্যাণেও কাজ করছেন তিনি।

-এসআর