মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ ।। ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০ ।। ১৭ শাবান ১৪৪৫


ফতোয়ার ভাষা আর দাওয়াহর ভাষা এক নয়!

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
শেয়ার

মুফতি জিয়াউর রহমান।।

ফতোয়ার ভাষা আর দাওয়াতের ভাষা পৃথক দুটি বিষয়৷ ফতোয়ার ভাষা একটু কঠিন এবং আবেগ-অনুরাগহীন হয়ে থাকে৷ এখানে আবেগ-অনুরাগের কোনোই স্থান নেই৷ যেসব মুফতি সাহেবের মধ্যে বিবেক ও শরীয়তের উপর আবেগ ভর করে নেয়, তারা ফতোয়া প্রদানের যোগ্যতা হারিয়ে ফেলেন৷

দুনিয়াতে নিজের স্ত্রী-সন্তান হচ্ছে আবেগের সবচাইতে স্পর্শকাতর জায়গা৷ যখন কয়েকটি সন্তান রেখে স্বামী অপরিণামদর্শী হয়ে স্ত্রীকে চূড়ান্তভাবে তালাক দিয়ে দেয়, মুফতি সাহেবের কাছে এসে কান্নাকাটি করে৷ বাচ্চাদের অসহায়ত্বের বিবরণ দেয়৷ তখন একজন মুফতি সাহেবের ভেতরে যে তোলপাড় সৃষ্টি হয়, তা উত্তাল সাগরে সৃষ্ট জলোচ্ছ্বাসের চাইতেও তীব্রতর ও আলোড়ন সৃষ্টিকারী হয়৷

তখনও একজন মুফতি সাহেবকে থাকতে হয় আবেগ-অনুরাগের সম্পূর্ণ ঊর্ধ্বে৷ চোখ বুঝে সঠিক মাসআলাটা বলে দিতে হয় অকপটে৷ এটাই ফতোয়া প্রদানের নীতি-উসূল৷ ফিকহ-ফতোয়া শেখার পাশাপাশি ফতোয়া প্রদানের এই প্র্যাক্টিসটাও শেখানো হয় দারুল-ইফতাসমূহে৷

একজন মুফতি সাহেব যখন দলিল ও উসূলের ভিত্তিতে কোনো হারাম কাজকে 'হারাম' বলেন৷ নাজায়েয কাজকে 'নাজায়েয' বলেন, তখন আমরা মনক্ষুন্ন না হয়ে খুশি হওয়ার কথা যে, আলহামদুলিল্লাহ এখনো সাদাকে সাদা আর কালোকে কালো বলার লোক আছেন আমাদের মাঝে৷

কেউ একজন যখন শুধুই দাঈ হন, ফিকহ-ফতোয়ার সাথে সম্পর্কিত না হন, তিনি আবেগ দ্বারা খুব বেশি নিয়ন্ত্রিত থাকেন৷ যার কারণে মাঝেমধ্যেই তাঁর থেকে শরীয়ত লঙ্ঘনের মতো কাজ সংঘটিত হয়ে যায়৷ সেখানেও তাঁর নিয়ত ভালো থাকে, কিন্তু আবেগ গালিব হওয়ার কারণে মনের অজান্তেই শরীয়তের গণ্ডি ছাড়িয়ে যান৷

-এটি


সম্পর্কিত খবর