কুরআনুল কারিমে মৌমাছির বিষয়ে যে আয়াতগুলো অবতীর্ণ হয়েছে
অক্টোবর ২১, ২০২১ ৪:২১ অপরাহ্ণ

সাখাওয়াত রাহাত।। হাই রেজুলেশন মাইক্রোস্কোপ ক্যামেরায় তোলা মৌমাছির ছবি। এটা আল্লাহ তাআলার নিপুণ সৃষ্টি। যিনি সৃষ্টিকর্তা, উদ্ভাবনকারী, আকৃতিদাতা।

মানুষ আল্লাহর সাথে যা কিছু শরিক করে তিনি সেসব থেকে পবিত্র। তাঁর কোনো শরিক নেই। তাঁর সত্তায়ও কেউ শরিক নেই। গুণাবলীও কেউ শরিক নেই। কারণ তিনি এক-অদ্বিতীয়। মুশরিকদের সম্পর্কে ইরশাদ হয়েছে—
قُلۡ اَرَءَیۡتُمۡ مَّا تَدۡعُوۡنَ مِنۡ دُوۡنِ اللّٰہِ اَرُوۡنِیۡ مَاذَا خَلَقُوۡا مِنَ الۡاَرۡضِ اَمۡ لَہُمۡ شِرۡکٌ فِی السَّمٰوٰتِ ؕ اِیۡتُوۡنِیۡ بِکِتٰبٍ مِّنۡ قَبۡلِ ہٰذَاۤ اَوۡ اَثٰرَۃٍ مِّنۡ عِلۡمٍ اِنۡ کُنۡتُمۡ صٰدِقِیۡنَ
অর্থাৎ, ‘(হে নবি!) বলুন, তোমরা আল্লাহ ব্যতীত যাদের পূজা কর, তাদের বিষয়ে ভেবে দেখেছ কি? দেখাও আমাকে তারা পৃথিবীতে কি সৃষ্টি করেছে? অথবা নভোমন্ডল সৃজনে তাদের কি কোন অংশ আছে? এর পূর্ববর্তী কোন কিতাব অথবা পরস্পরাগত কোন জ্ঞান আমার কাছে উপস্থিত কর, যদি তোমরা সত্যবাদী হও। (সূরা আহকাফ ৪৬ : ৪)

কোনো কিছু সৃষ্টি করা তো দূরের কথা, ওদের উপাস্যরা আল্লাহ তাআলার সৃষ্টি সামান্য মাছি থেকেও নিজেদের রক্ষা করতে পারে না। আল্লাহ তায়ালা বলেন—
یٰۤاَیُّہَا النَّاسُ ضُرِبَ مَثَلٌ فَاسۡتَمِعُوۡا لَہٗ ؕ اِنَّ الَّذِیۡنَ تَدۡعُوۡنَ مِنۡ دُوۡنِ اللّٰہِ لَنۡ یَّخۡلُقُوۡا ذُبَابًا وَّلَوِ اجۡتَمَعُوۡا لَہٗ ؕ وَاِنۡ یَّسۡلُبۡہُمُ الذُّبَابُ شَیۡئًا لَّا یَسۡتَنۡقِذُوۡہُ مِنۡہُ ؕ ضَعُفَ الطَّالِبُ وَالۡمَطۡلُوۡبُ
অর্থাৎ ‘হে লোকসকল! একটি উপমা বর্ণনা করা হলো, অতএব তোমরা তা মনোযোগ দিয়ে শোন; তোমরা আল্লাহর পরিবর্তে যাদের পূজা কর, তারা কখনও একটি মাছি সৃষ্টি করতে পারবে না, যদিও তারা সকলে একত্রিত হয়। আর মাছি যদি তাদের কাছ থেকে কোনো কিছু ছিনিয়ে নেয়।

তবে তারা তার কাছ থেকে তা উদ্ধার করতে পারবে না, প্রার্থনাকারী ও যার কাছে প্রার্থনা করা হয়, উভয়েই শক্তিহীন। আল্লাহ তায়ালা সকলকে বুঝার তাওফিক দিন।

লেখক: তরুণ আলেম, লেখক, গবেষক।

-এটি

সর্বশেষ সব সংবাদ