‘ইসলামি দলগুলোকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা বিএনপি নেতাদের মুখে বড়ই বেমানান’
অক্টোবর ১৩, ২০২১ ৪:০৩ অপরাহ্ণ

গাজী আতাউর রহমান।।

রাজনৈতিক শিষ্টাচার ও ভদ্রতা বলে একটা কথা আছে। শত প্রতিকূলতার মাঝেও, সীমাহীন দুঃখ-বেদনা সত্বেও দায়িত্বশীল রাজনৈতিক নেতৃত্ব সাধারণত ভদ্রতা ও শিষ্টাচার -এর সীমা অতিক্রম করেন না।

কিন্তু বিএনপি’র মত একটি জনপ্রিয় ও প্রতিনিধিত্বশীল রাজনৈতিক দলের একজন সিনিয়র নেতার ক্ষেত্রে বিস্ময়করভাবে এর ব্যতিক্রম দেখলাম।

তিনি এক টিভি সাক্ষাৎকারে রাগে-ক্ষোভে, বেদনায় দেশের প্রায় সকল ইসলামী সংগঠনকে চরমভাবে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করলেন।

অথচ এই ইসলামপন্থীরাই তাদের শ্রম-ঘাম এবং রক্তের বিনিময়ে বারবার বিএনপিকে ক্ষমতায় যাওয়ার রাস্তা করে দিয়েছেন। বিনিময়ে বলতে গেলে কিছুই পায়নি।

অথচ এই শাহজাহান ওমরের মত সুবিধাভোগী নেতারা দেশের সম্পদ এবং দেশের জনগণের সম্পদ লুটপাট করে দেশকে দুর্নীতিতে বার বার বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন বানিয়েছেন।

দেশের ইসলামী সংগঠনগুলো বিএনপির সাথে জোট করে হয়তো ভুল করেছে; কিন্তু তারা রাজনৈতিকভাবে কোন অপরাধ করেনি। বড় দলগুলোর সাথে ছোট দলগুলোর জোটবদ্ধ হওয়া বা জোট ছেড়ে দেয়া কোন অপরাধ নয়। বড় দলের আগ্রহের কারণেই সাধারণত ছোট দলগুলো জোট বদ্ধ হয় অথবা জোট ত্যাগ করে।

অথচ ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর -এর মত বিএনপি’র একজন সিনিয়র নেতা এবং দায়িত্বশীল ভাইস চেয়ারম্যান ডিবিসি নিউজের সাথে সাক্ষাৎকারে দেশের প্রায় সব ইসলামী সংগঠনকে অপরাধীর কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়ে চরম অশালীন ও কটাক্ষপূর্ণ ভাষায় আক্রমণ করেছেন।

আসলে প্রকৃত উচ্ছিষ্টভোগী ঝুটা পার্টি তো তারাই, যারা দুর্নীতির মাধ্যমে দেশের এবং জনগণের সম্পদ লুটেপুটে খায়। সে ক্ষেত্রে বাংলাদেশের কোন ইসলামী দলের নেতার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোন সুনির্দিষ্ট অভিযোগ নেই।
অথচ শাহজাহান ওমরদের দলের এমন কোনো গুরুত্বপূর্ণ নেতা পাওয়া যাবে না, যার বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির মামলা নেই। দুর্নীতির দায়ে কনভিক্টেড একটি দলের নেতা হয়ে অন্যদেরকে সুবিধাবাদী বলাটা হাস্যকর।

তাছাড়া ইসলামি দলগুলোকে ছোট বলে অবজ্ঞা করা বা তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা বিএনপি নেতাদের মুখে বড়ই বেমানান। কারণ, বিএনপি জনগণ থেকে জন্ম নিয়ে বড়দল হয়নি। বরং বিএনপি ক্ষমতায় থেকে জন্ম নিয়ে ক্ষমতার সুবিধা কাজে লাগিয়ে বড়দল হয়েছে।

জন্মগতভাবে বিএনপি এবং জাতীয় পার্টির মধ্যে কোন তফাৎ নেই। ইসলামী সংগঠনগুলো সঙ্গ না দিলে, বিএনপি’র পরিণতিও জাতীয়পার্টির মতোই হওয়ার কথা।

অপরদিকে দেশের কোন একটি ইসলামী সংগঠনও ক্ষমতার সুবিধা নিয়ে জন্ম নেয়নি। বরং প্রত্যেকটি ইসলামী দলই, তা যত ক্ষুদ্রই হোক; জনগণের মধ্য থেকে জন্ম নিয়েছে। অতএব, বিএনপির শাহজাহান ওমরেরা যত তুচ্ছ-তাচ্ছিল্যই করুক, এদেশে ইসলামী রাজনৈতিক শক্তির শিকড় অনেক গভীরে।

আমরা আশাবাদী, দুর্নীতিবাজ শক্তির পতনের মধ্য দিয়ে একদিন এদেশে ইসলামী শক্তির বিজয় হবে, ইনশাআল্লাহ।

লেখক: রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব

এনটি

সর্বশেষ সব সংবাদ