fbpx
           
       
           
       
মালালার বিয়ের বিরোধিতা করার পেছনে লুকিয়ে আছে যে রহস্য
জুন ১৪, ২০২১ ১২:১১ অপরাহ্ণ

সেহতাজ মেহবুব ডেইলি পাকিস্তান
অনুবাদ- কাউসার লাবীব

ব্রিটিশ ম্যাগাজিন দ্য ভোগকে বিয়ের বিষয়ে দেওয়া মালালা ইউসুফজাইয়ের সাক্ষাত্কারটি আজকাল আলোচনার মধ্যে রয়েছে। সাম্প্রতিক দিনগুলিতে এই সাক্ষাত্কারটি সোশ্যাল মিডিয়ায়ও শীর্ষ ট্রেন্ড করে চলেছে। সাক্ষাত্কারের সময়, কেন বেঁচে থাকার জন্য বিবাহের প্রয়োজনীয়তা সম্পর্কে মালালার বক্তব্য, ‘এই জীবন অংশীদারিত্বের মধ্য দিয়েই বেঁচে থাকতে পারে’ কেবল ধর্মীয়ই নয়, সামান্য ‍বুদ্ধি সম্পন্ন মানুষকেও হতবাক করে দিয়েছে। শুধু তাই নয়, শোবিজের সদস্যরাও অবাক হয়ে গিয়েছিলেন মালালার কথায়।

নিঃসন্দেহে, আমরা পশ্চিমা সংস্কৃতি দ্বারা প্রভাবিত। এটি শিক্ষাব্যবস্থা হোক বা জীবনযাত্রা, এমনকি বক্তৃতায় আমরা পশ্চিমা অনুপ্রেরণায় গর্বিত। যদিও এটি সত্য যে, ব্রিটিশ শাসনের পর থেকে ব্রিটিশ সংস্কৃতির জীবাণু দীর্ঘকাল ধরে উপমহাদেশে উপস্থিত। ব্রিটিশরা স্বাধীনতার পরে উপমহাদেশ থেকে সরে যাওয়ার পরে এই প্রবণতা হ্রাস করা উচিত ছিল, তবে পশ্চিমা এই জীবনযাপন বা এর জন্য আকাঙ্ক্ষা ক্রমাগত বেড়েই চলছে। অবশ্য, ব্রিটিশরা এখানে এমন বীজ বপন করেছিল যেগুলি ধীরে ধীরে বিকাশ লাভ করছে এবং সমগ্র জাতিকে গোলামির পরিসীমায় আবদ্ধ করছে।

এখন আমরা মালালায় আসি। কীভাবে মালালাকে ‘নাটক’ দ্বারা নায়ক বানানো হয়েছিল। তার ওপর হামলাকারীরা কীভাবে গাড়ি থামিয়েছিল। তার নাম জিজ্ঞাসা করেছিল এবং গুলি চালিয়েছিল। তার সঙ্গে থাকা অন্যান্য মেয়েরা এই ঘটনায় নিরাপদ ছিল। অবাক হওয়ার বিষয় এই যে, কেবল তার সঙ্গেই এমন ঘটনা ঘটেছে যে সন্ত্রাসীরা তার নাম জিজ্ঞাসা করে তাকে টার্গেট করেছে। অথচ এই ঘটনার আগে এবং পরে স্কুল বাচ্চাদের গাড়িকে লক্ষ্যবস্তু করে চালানো হামলায় কাউকে কিছু জিজ্ঞেস করা ছাড়াই হামলা চালানো হয়েছিল ব্যাপকভাবে।

থাক সে বিষয়গুলি। মালালাকে এই সময়ে এমন কথা বলার কী দরকার ছিল তা নিয়ে কথা বলতে চাই। আসলে খ্রিস্টান এবং ইহুদিদের একটি বিশাল সংখ্যাগুরু নিজেরা যতই দুষ্টই হোক না কেন, অন্যান্য শ্রেণীর মধ্যে তাদের জনপ্রিয়তা হ্রাস হওয়ার ভয়ে প্রকাশ্যে, বিশেষত অভিজাতরা এই জাতীয় সমাজ বিরোধী বক্তব্য প্রকাশ করা থেকে বিরত থাকে। কিন্তু মালালা, যিনি সম্ভবত মুসলিম কিশোরী হিসাবে প্রথম আন্তর্জাতিক খ্যাতি অর্জন করেছেন। অবশ্যই তিনি জেনে থাকবেন যে, এই জাতীয় বক্তব্য তার জনপ্রিয়তা হ্রাস করতে পারে। তবে তিনি কেন এমন করলেন?

সকলেই দেখেছিল যেভাবে মালালা খ্যাতি পেয়েছিল, এমনকি তাকে নোবেল পুরষ্কারও দেওয়া হয়েছিল তা তিনি বেশিদিন ধরে রাখতে পারেননি এবং নিজ দেশের লোকজনও তাকে ভুলে গিয়েছিল। নিজেকে আবার একটি আলোচিত বিষয় হিসাবে গড়ে তোলার জন্য তার কিছু করা দরকার ছিল। সে ক্ষেত্রে তিনি সফল হয়েছেন।  মালালার বিয়ের বিষয়টি সারা বিশ্বে আবার আলোচনার বিষয়বস্তুতে পরিণত হয়েছে। দীর্ঘকাল ধরে ভুলে যাওয়া মালালাকে মানুষের মনে সতেজ করা হয়েছে। নতুন পৃথিবীতে আসা যেসব শিশুরা মালালাকে জানত না; তারা এখন জানেন যে মালালা ইউসুফজাই নামে একজন আছেন।

-কেএল

সর্বশেষ সব সংবাদ