fbpx
           
       
           
       
প্রার্থীর ভাই হত্যার ৪ ঘণ্টা পরে প্রতিদ্বন্দ্বী কাউন্সিলর প্রার্থীর লাশ উদ্ধার
জানুয়ারি ১৪, ২০২১ ৫:২৬ অপরাহ্ণ

আওয়ার ইসলাম: প্রার্থীর ভাই হত্যার ৪ ঘণ্টা পরে প্রতিদ্বন্দ্বী কাউন্সিলর প্রার্থীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি ঘটেছে ঝিনাইদহের শৈলকুপা পৌরসভায়। ভোটের দুদিন আগেই সহিংসতা দেখা দিয়েছে সেখানে। নির্বাচনী প্রচারণায় একপক্ষ আর অন্যপক্ষের রেষারেষিতে প্রাণ গেছে কাউন্সিলর প্রার্থীর ছোট ভাইয়ের। এর চার ঘণ্টা পর এবার প্রতিদ্বন্দ্বী এক কাউন্সিলর প্রার্থীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

বুধবার (১৩ জানুয়ারি) দিবাগত রাত পৌনে ২টার দিকে শৈলকুপা উপজেলার বারুইপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন কুমার নদ থেকে তার লাশ উদ্ধার করা হয়। নিহত আলমগীর খান বাবু শৈলকুপা পৌর এলাকার কবিরপুর গ্রামের জালাল খানের ছেলে।

এ ব্যাপারে শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, খবর পেয়ে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন হাতে পাওয়ার পরে মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে নিশ্চিত করা যাবে। গতকাল তার বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর ভাই লিয়াকত হোসেন বল্টুকে (৪৫) হত্যার অভিযোগ ওঠার পর থেকে তিনি আত্মগোপনে ছিলেন।

শৈলকুপার দেবতলা গ্রামের বাসিন্দারা জানায়, বাবুর লাশ পাওয়া খবরের কিছু আগে দুজন ব্যক্তিকে সাঁতরে নদ পার হতে দেখেছেন। লিয়াকত হোসেনের ভাতিজা মসিউজ্জামান বলেন, ‘আমার বাবা শওকত আলী ৮নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদপ্রার্থী। ২০১৫ সালেও তিনি এই ওয়ার্ড থেকে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন।

চাচা গতকাল নির্বাচনি প্রচারণা শেষে ফিরছিলেন। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আলমগীর খান বাবুর নেতৃত্বে তার সমর্থকরা অস্ত্র হাতে হামলা চালায়। গুরুতর আহত অবস্থায় চাচাকে প্রথমে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কুষ্টিয়া সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে রাত ১০টার দিকে তার মৃত্যু হয়।’

আলমগীর খান বাবুর স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা জানান, রাত সাড়ে ১০টার দিকে বাবুর সঙ্গে তার শেষ কথা হয়েছে। বাবু জানিয়েছিলেন, তিনি নিরাপদে আছেন।

একজন কাউন্সিলর প্রার্থীর লাশ উদ্ধার ও প্রতিদ্বন্দ্বী অপর কাউন্সিলর প্রার্থী শওকত আলীর ভাই ডিস ব্যবসায়ী লিয়াকত হোসেন বল্টুকে খুনের ঘটনায় উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে শৈলকুপা নির্বাচনী পরিবেশ। অভিযোগ উঠেছে বুধবার রাতে নির্বাচনী ঘটনার জের ধরে কবিরপুর এলাকায় বল্টুকে কুপিয়ে জখম করে সদ্য লাশ পাওয়া আলমগীর খান বাবুর সমর্থকরা। এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই অভিযোগের তীর যার দিকে, চার ঘণ্টা পর তার লাশ উদ্ধারের ঘটনাটি রহস্যজনক।

প্রাথমিকভাবে পুলিশ এটিকে পানিতে ডুবে মৃত্যুর ঘটনা মনে করলেও তারা এর পেছনে নেপথ্যের কারণ অনুসন্ধানে মাঠে নেমেছে। এক দিনে আওয়ামী সমর্থক দুই রাজনৈতিক কর্মীর লাশ আসন্ন পৌর নির্বাচনকে আরও সংঘাতময় ও উত্তপ্ত করে তুলতে পারে বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

এমডব্লিউ/

সর্বশেষ সব সংবাদ