বুধবার, ৩১ মে ২০২৩ ।। ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০ ।। ১১ জিলকদ ১৪৪৪


ভালো ছাত্র হবার ১০ বিজ্ঞানভিত্তিক কৌশল

নিউজ ডেস্ক
নিউজ ডেস্ক
শেয়ার

এম. হাসান

ভালো ছাত্র কে না হতে চায়! কিন্তু সারাক্ষণ শুধু বই নিয়ে থাকলে কি ভালো ছাত্র হওয়া যায়? না যায় যায় না। তার জন্য চাই সঠিক কিছু পরিকল্পনা। পড়াশোনায় একজন ভালো ছাত্র হওয়ার উপায় অনেক। তার মধ্যে সহজতর বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিগুলো জানা থাকলে যে কোনও একজন ছাত্রই হয়ে উঠতে পারেন ভালো ছাত্র। প্রাত্যহিক জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত অনেক দামী আর বৈচিত্রময়। তাই এই মুহূর্তগুলোকে কাজে লাগানোই হচ্ছে প্রতিভাবান লোকেরদের কাজ। ছাত্র জীবনেও এরকম একটি ছকে বাঁধা জীবন নয় বরং বৈচিত্রময় একটি কাল অতিক্রম হয়।একে অনেক ছাত্র-ই সাজিয়ে ফেলেন নিজেদের মতো করে। যার ফলাফল নিশ্চিত ভালো রেজাল্ট। আর এই আয়োজনের নাম হল- প্রতিদিনের রুটিন অথবা ডেইলি রুটিন। ভালো ছাত্র হওয়ার উপায় হিসেবে বিবেচনা করা হয় কতগুলি মৌলিক উপাদানকে। তার মধ্যে একটি অবশ্যই ডেইলি রুটিন। এর মাহাত্ম আছে যে কোনও খারাপ ছাত্রকেই ভালো ছাত্র হওয়ার উপায় বাতলে দিতে পারে। ভালো ছাত্র হবার সুবিধা অনেক। সেই সব সুবিধের কথা জানেন না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। শিক্ষার্থীদের জন্য অধ্যয়নের মনোভাব এবং মানসিকতা উন্নত করার দেওয়া হলো ১০টি টিপস সেরা অধ্যয়নের টিপস। এগুলো আপনার সেরা একাডেমিক সমর্থন পেতে সর্বোত্তম মেমরি এবং মস্তিষ্কের কার্যকারিতার বৃদ্ধিতে, অধ্যয়নের মনোভাব ও মানসিকতা উন্নত করতে এবং ফোকাস বাড়াতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে।

তা হলে এবার মনোযোগ দিয়ে পড়তে থাকুন।  সেইসঙ্গে সর্বোত্তমভাবে মানার চেষ্টা করুন। ইনশাল্লাহ আপনার বিজয় হবেই। তাই কথা না বাড়িয়ে চলুন যাই কীভাবে ভালো হওয়া ছাত্র যায় সে বিষয়ে শিখতে।

১.আত্মবিশ্বাসী হোন: সর্বদা সর্ব হালতে আল্লাহর উপর ভরসা রেখে আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠুন।ভয়কে জয় করুন। কারণ পৃথিবীর সব কিছু জয় করেছে সাহসীরা। ভিরুরা কিছুই করতে পারেনি, সারা জীবন হা হুতাস করা ছাড়া। তাই ভাষার ব্যবহারেও আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠুন। যেমন: ‘আমাকে করতে হবে’ বলবেন না। এর পরিবর্তে বলুন ‘আমি পেতে পারি/ আমি করতে পারি’

নিজের সঙ্গে কথা বলার সময় আপনি যে শব্দগুলি ব্যবহার করেন তা গুরুত্বপূর্ণ। সেগুলো আপনার মনোভাব গঠন করে। নিজেকে বলা: ‘আজ, আমাকে এই অ্যাসাইনমেন্টে কাজ করতে হবে’ চাপ এবং হতাশার অনুভূতি তৈরি করবে।

পরিবর্তে, নিজেকে বলার চেষ্টা করুন: ‘আজ, আমি এই অ্যাসাইনমেন্টে কাজ করতে যাচ্ছি।’ এটা বলা আপনাকে মনে করিয়ে দেবে যে শিক্ষা একটি বিশেষাধিকার। মনোভাবের এই সাধারণ পরিবর্তন আপনাকে কাজটি সম্পন্ন করার জন্য আরও প্রেরণা ও ফোকাস দেবে।

২. আপনার নিজের শেখার জন্য সম্পূর্ণ দায়িত্ব নিন: আপনি যখন আপনার শেখার দায়িত্ব¡ নেবেন, তখন আপনি আরও সক্রিয় হয়ে উঠবেন। এই ক্ষেত্রে পরিবর্তন আনার একটি উপায়  হলো নিজেকে জিজ্ঞাসা করা: ‘আমি যদি আমার শেখার জন্য দায়ী না হই, তাহলে কে?’ নিজেকে এই প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা আপনাকে বুঝতে সাহায্য করবে যে আপনার শেখার জন্য অন্য কেউ দায়ী নয় - আপনার শিক্ষক নয় এবং আপনার পিতামাতা নয়।

৩. অন্যরা যা করতে ইচ্ছুক তার চেয়ে বেশি করুন: একাডেমিক্সে - মানুষের প্রচেষ্টার অন্য যে কোনও ক্ষেত্রের মতো - যে ছাত্ররা শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করে তারাই অতিরিক্ত মাইল যেতে প্রস্তুত। প্রয়োজনীয়তা পূরণের জন্য ন্যূনতম কাজ করার পরিবর্তে, অন্যরা যা করতে ইচ্ছুক তার চেয়ে বেশি করুন। এর অর্থ হতে পারে আপনি আরও বেশি তথ্য জানার জন্য শিক্ষককে অন্য সবার চেয়ে আরও দুই বা তিনটি বেশি প্রশ্ন করে জেনে নেবেন।আপানার জানার আগ্রহ থাকতে হবে। এর অর্থ হতে পারে অতিরিক্ত সংস্থানগুলি সন্ধান করা, বা এর অর্থ হতে পারে আপনার প্রবন্ধটি একবার চূড়ান্তভাবে প্রুফরিড করা।

৪. গ্রেডের ভাবনা ত্যাগ করুন: গ্রেডের উপর খুব বেশি ফোকাস করবেন না। একজন ছাত্র হিসাবে, গ্রেডে স্থির হওয়া সহজ। কিন্তু মনে রাখবেন যে গ্রেডগুলি কেবল প্রতিক্রিয়ার একটি রূপ; তারা নিজেদের মধ্যে শেষ নয়। গ্রেডের উপর ফোকাস করার অনুমতি দেবেন না যাতে আপনি ভুলে যান যে এটি শেখার প্রক্রিয়া যা দীর্ঘমেয়াদে গণনা করে।

৫. ইতিবাচকভাবে চ্যালেঞ্জ দেখুন: আপনি যখন নতুন কিছু শিখছেন, তখন আপনি অভিভূত বোধ করতে পারেন। যখন উদ্বেগ এবং চাপ স্থির হয়ে যায়, তখন শিক্ষার্থীরা শেখার ভয় তৈরি করতে পারে যা তাদের মনোযোগ এবং অগ্রাধিকার দিতে বাধা দেয়, শেষ পর্যন্ত তাদের কর্মক্ষমতা বাধাগ্রস্ত করে। এই কারণেই আপনাকে অবশ্যই বিকশিত হতে হবে। এর মানে হল যে কিছু ‘খুব কঠিন’ তা নিজেকে বলার পরিবর্তে, আপনি নিজেকে বলুন যে এটি আপনার মস্তিষ্কের ‘বৃদ্ধি’ করার একটি সুযোগ। সর্বোপরি, আপনি যত বেশি চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করবেন, তত বেশি শিখবেন।

৬.  কেন আপনি একাডেমিকভাবে ভালো করতে চান: একজন ছাত্র হিসাবে সফল হওয়ার একটি চাবিকাঠি হল আপনি কেন সফল হতে চান সে সম্পর্কে পরিষ্কার হওয়া। যদি আপনার যথেষ্ট আত্মবিশ্বাস থাকে তবে আপনি সবচেয়ে অবিশ্বাস্য জিনিসগুলি করতে পারেন। ৩ থেকে ৫টি কারণ লিখুন কেন আপনি স্কুলে ভাল করতে চান এবং তালিকাটি প্রতিদিন পড়ুন।

৭. স্বেচ্ছাসেবক এবং নিয়মিত অন্যদের সেবা: এটি আপনাকে মনে করিয়ে দেবে যে শিক্ষা কখনই শূন্যতায় ঘটে না। শিক্ষা সর্বদা অন্যদের কাছ থেকে শেখা বা সেই জ্ঞান অন্যদের কাছে প্রেরণ করা। স্বেচ্ছাসেবক ও অন্যদের সেবা করার মাধ্যমে, আপনি দেখতে শুরু করবেন যে আপনার জীবন প্রধানত আপনার সম্পর্কে নয়। এটি আপনার দক্ষতা এবং জ্ঞান ব্যবহার করে বিশ্বকে একটি ভালো জায়গা করে তোলার বিষয়ে এটি আপনাকে বাধাগুলির মধ্যে অধ্যবসায় করার ইচ্ছাশক্তি দেবে।

৮. এই দুটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করে আপনার ফোকাস পুনরুদ্ধার করুন: প্রথম প্রশ্ন হল: এখন গুরুত্বপূর্ণ কী? দ্বিতীয় প্রশ্নটি হল: এর পরে কী গুরুত্বপূর্ণ? মনোযোগের অভাব প্রায়শই একই সময়ে অনেকগুলি কাজ করার চেষ্টা করার ফলাফল। যখন আপনি নিজেকে ফোকাস করতে অক্ষম। তখন এই দুটি প্রশ্ন আপনাকে বর্তমানের দিকে ফিরিয়ে আনবে।

৯. সিস্টেম ও রুটিন ব্যবহার করুন: আপনি কী করতে চান তা নিয়ে ক্রমাগত চিন্তা করার পরিবর্তে সিস্টেম ও রুটিন তৈরিতে মনোযোগ দিন। যে শিক্ষার্থীরা ভালো পারফর্ম করে তারা তাদের সাফল্যের কৃতিত্ব উচ্চ লক্ষ্য নয়, বরং তাদের দৈনন্দিন সিস্টেম ও প্রক্রিয়াকে দেয়। লক্ষ্যগুলোয় খুব বেশি ফোকাস করার সমস্যা হল যে এটি আপনাকে প্রয়োজনীয় প্রচেষ্টার সঙ্গে আপনার লক্ষ্যগুলিকে সংযুক্ত করতে সক্ষম করে না। সাফল্যের সঙ্গে একটি শৃঙ্খলা এবং একটি রুটিনের প্রতিশ্রুতি জড়িত, এমনকি যখন চলা কঠিন হয়ে যায়।

১০. কৃতজ্ঞতা বিকাশ করুন: প্রতিদিন, অন্তত একটি জিনিস লিখুন যার জন্য আপনি কৃতজ্ঞ। এটা দেখানো হয়েছে যে যে সমস্ত শিক্ষার্থীরা কৃতজ্ঞতার বোধ গড়ে তোলে তারা তাদের গ্রেড এবং জীবনের মান উন্নত করতে ইতিবাচক চিন্তাভাবনাকে কাজে লাগাতে সক্ষম হয়। আপনি প্রতিদিন একটি জিনিস লিখে আপনার ‘কৃতজ্ঞতা পেশী’ বিকাশ করতে পারেন যার জন্য আপনি কৃতজ্ঞ।

কেএল/


সম্পর্কিত খবর