198217

শাইখুল ইসলামের ইন্তেকালে ময়মনসিংহ ইত্তেফাকুল উলামার শোক

আল-আমিন(বাপ্পি)
ময়মনসিংহ প্রতিনিধি>

বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ এর সভাপতি ও হাটহাজারী মুঈনুল ইসলাম মাদরাসার সদরুল মুহতামিম এবং হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী আর নেই। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

শুক্রবার রাজধানীর আজগড় আলী হাসপাতালে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন।

তার মৃত্যুতে ইত্তেফাকুল উলামা বৃহত্তর মোমেনশাহী মজলিসে শূরার সভাপতি আল্লামা আব্দুর রহমান হাফেজ্জী,কেন্দ্রীয় সভাপতি মাওলানা খালিদ সাইফুল্লাহ সাদী,সম্পাদক মাওলানা আবুল কালাম আজাদ,জেলা সভাপতি মুফতি মুহিব্বুল্লাহ,এবং কেন্দ্রীয় সাহিত্য ও প্রকাশনা সম্পাদক মুফতি আমীর ইবনে আহমাদ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

শোকবার্তায় বলা হয়,আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ.একজন শতবর্ষী কিংবদন্তি ইসলামী ব্যক্তিত্ব ছিলেন,এবং তিনি একাধারে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা ও দায়িত্বপ্রাপ্ত আমীর,সেই সাথে বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশের চেয়ারম্যান,এবং দারুল উলুম মুঈনুল ইসলামের হাটহাজারীর মহাপরিচালক ছিলেন।

নাস্তিক্যবাদের বিরুদ্ধে তার সংগ্রাম জাতি চিরদিন স্মরণ রাখবে। কওমি মাদ্রাসা এবং মুসলিম মিল্লাতের জন্য তিনি যে খেদমত করে গেছেন তা ইতিহাসের পাতায় চির অম্লান হয়ে থাকবে,তার ইন্তেকালে পুরো মুসলিমবিশ্ব একজন আধ্যাতিক ও ধর্মীয় অভিভাবককে হারাল।
আমরা মরহুমের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেছি।

উল্লেখ্য,গতকাল (১৭সেপ্টেম্বর) মাদ্রাসার দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি নেয়ার পর বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে ফায়ার সার্ভিসের একটি অ্যাম্বুলেন্সে করে তাকে চট্টগ্রাম হাসপাতালে নেয়া হয়।

শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের আইসিইউতে থাকা আল্লামা শফীকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে শুক্রবার সন্ধ্যার আগে ঢাকায় এনে আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সেখানেই তিনি মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন।

-এটি

ads