198134

চাকরির বয়সে ছাড় দিতে সংশ্লিষ্ট দপ্তরগুলোকে নির্দেশ

আওয়ার ইসলাম: করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে যেসব প্রার্থী সরকারি চাকরিতে আবেদন করার সুযোগ পাননি অথচ চাকরির বয়স শেষ হয়ে গেছে, তাদের জন্য বয়সের নতুন সীমা নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে সরকার। এ বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে মন্ত্রণালয় বা বিভাগগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়।

আজ বৃহস্পতিবার জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের বিধি-১ শাখা থেকে এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, যে সকল মন্ত্রণালয় বা বিভাগের অধীন অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, সংস্থার এবং বিধিবদ্ধ বা সংবিধিবদ্ধ, স্বায়ত্ত্বশাসিত কিংবা জাতীয়কৃত প্রতিষ্ঠানসমূহ বিভিন্ন ক্যাটেগরির সরকারি চাকরিতে (বিসিএস ব্যতীত) সরাসরি নিয়োগের লক্ষ্যে যথাযথ কর্তৃপক্ষ থেকে গত ২৫ মার্চের আগে নিয়োগের ছাড়পত্র গ্রহণ করে, সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করা সত্ত্বেও করোনা পরিস্থিতির কারণে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে পারেনি, সে সকল স্তরের নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ২৫ মার্চ তারিখে প্রার্থীর সর্বোচ্চ বয়সসীমা নির্ধারণ করে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করা হলো।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা দৈনিক আমাদের সময়কে বলেন, ‘যেসব প্রার্থী ২৫ মার্চ তারিখ পর্যন্ত প্রকাশিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে আবেদন করতে পারত, তারা এখন ওই সব নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর আবেদন করতে পারবে।’

বিজ্ঞপ্তি অনুসারে গত ২৫ মার্চ সাধারণ প্রার্থীদের মধ্যে যাদের বয়স ৩০ বছর পূর্ণ হয়েছে, তাদের আবেদনের যোগ্য বিবেচিত করে মন্ত্রণালয়, বিভাগ ও সংস্থাগুলোকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হয়েছে। বর্তমানে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে সাধারণ প্রার্থীদের বয়সসীমা ৩০ বছর, মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের ক্ষেত্রে ৩২ বছর। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির চাকরিতে সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়া হয়। তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির পদগুলোতে নিয়োগের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট দপ্তরের।

গত মঙ্গলবার জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে গত ২৫ মার্চ যাদের বয়স ৩০ বছর পূর্ণ হয়েছে, তাদের সরকারি চাকরিতে আবেদনের সুযোগ দিতে যাচ্ছে সরকার। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরকারি চাকরি প্রত্যাশীদের এই সুযোগ দেওয়া হচ্ছে বলে জানান তিনি।

-এটি

ads